পাতা:আত্মচরিত (শিবনাথ শাস্ত্রী).pdf/৯৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S8 শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচারিত বাড়ীতে থাকিতে থাকিতে ১৮৬৫ কি ১৮৬৬ সালে এই ভবানীপুরের একটা ভদ্রসন্তান কোনও গুরুতর অপরাধে দ্বীপান্তরে প্রেরিত হয়। সেই ঘটনাতে ভবানীপুরের লোকের চিত্তকে অতিশয় আন্দোলিত করে । আমারও চিত্তকে অতিশয় আন্দোলিত করে। সেইপ্ৰকার মনের ভাব লইয়া কবিতা লিখিতে বসি। কবিতাটি মাতুলের সংবাদপত্রে “নিকাসিতের বিলাপ” নাম দিয়া প্ৰকাশ করি। এই প্ৰথম কবিতা লেপ নয়। ইতিপূর্বে মধ্যে মধ্যে সোমপ্রকাশে ও প্যারীচরণ সরকারের সম্পাদিত এডুকেশন গেজেট কবিতা লিখিতাম। লোকে পড়িয়া প্ৰশংসা করিত। তাহাতে কবিতা লিখিতে উৎসাহিত হইতাম । এই সময়ে প্যারীচরণ সরকার মহাশয় এডুকেশন গেজেটের সম্পাদক 3 श्बांनॉन-निंबांब्रिगञ्द्र সভাপতি ছিলেন। কবিতা-লেখা সুত্রে তাহার সহিত আমার একটু ঘনিষ্ঠ সম্বন্ধ হয়। তিনি তখন প্রেসিডেন্সী কলেজে প্রফেসরী করিতেন এবং এডুকেশন গেজেট সম্পাদনা করিতেন। SDB YD DBDDDB sBLB DBDBD BDB D SDDDS SBDB করি। তাহাতে তিনি প্রীত হন ; এবং আমাকে লিখিতে উৎসাহিত করেন। তৎপরে এক ঘটনা ঘটিল, যাহাতে আমার কবিত্বশক্তিকে আর-একদিকে লইয়া গেল। আমাদের ভবানীপুরে একজন বিলাতফেরত ডাক্তার আসিয়া বসিলেন, তাহার হাব-ভাব চাল-চলন সবই ইংরাজী ধরণের। তিনি নিজের দ্বারে এক সাইনবোর্ড দিলেন, তাহাতে ডট বলিয়া নিজের উপাধি লিখিলেন। এই লইয়া আমাদের যুবকদলে হাসােহাসি পড়িয়া গেল। অমনি আমি বাঙ্গালীর সাহেবীয়ানার ১উপর বিরূপ বর্ষণের জন্য বিলাত-ফেরত বাঙ্গালী সাজিয়া “এস এন ডট” নাম লইয়া এডুকেশন গেজেট কবিতা লিখিতে লাগিলাম, বাঙ্গালীর প্রিয় যাহা তাহার উপরে বিন্দ্রপ-বর্ষণ করিতে লাগিলাম,