পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/১৯৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বন্ধ আমার সঙ্গে গিয়াছিলেন, তাঁহারা পরস্পর চোখোচোখি করিয়া হাসিতেছেন। BB DD DBDDBB BBBB DDBB DDDDBBDS DDD S DDDD D DBBDB DDBBDBD -করিলেন, দে আর ডান্সিং গালসি। আমি তখনই সে আসর হইতে উঠিয়া দাঁড়াইলাম, এবং সে স্থান ত্যাগ করিবার জন্য প্রস্তুত হইলাম। তখন গহস্বামী আমার সম্পম খে মাটিতে মাথা দিয়া পড়িয়া গেলেন, এবং আমাকে আসর ত্যাগ করিতে নিষেধ করিতে 'লাগিলেন। এই বিষয় লইয়া আসরের মধ্যে একটা আন্দোলন ও কানাকানি হইতে লাগিল। ডান্সিং গালাস আসিয়াছে বলিয়া চলিয়া যাইতেছি শনিয়া সমাগত ব্যক্তিগণ হাঁ করিয়া পরস্পর মািখ চাওয়াচাওয়ি করিতে লাগিলেন। সত্ৰীলোকগালির তো কথাই নাই। তাহারা এরােপ ব্যবহার কখনো কোথাও পায় নাই, সতরাং হাঁ করিয়া চারিদিকে তাকাইতে লাগিল। আমি অনানয় বিনয় করিয়া গহস্বামীর হাত ছাড়াইয়া রাস্তায় বাহির হইয়া পড়িলাম। সেই রাত্রেই সেই কথা শহরে ছড়াইয়া পড়িল, “ওরে ভাই, শানেছিস, ডান্সিং গালস এসেছিল বলে পন্ডিত শিবনাথ শাসন্ত্রী সে সােথান পরিত্যাগ করে গিয়েছেন!" তৎপরদিন আমি বেড়াইতে বাহির হইলেই লোকে গা টেপাটেপি করে, ও আমার প্রতি অঙ্গলি নির্দেশ করিয়া দেখাইয়া দেয়। কোনো কোনো ভদ্ৰলোক সাক্ষাতে আমার প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করিতে লাগিলেন ; বলিতে লাগিলেন, “আপনি একটা সামাজিক ব্যাধির প্রতি ঘণা প্রকাশ করিয়া ভালোই করিয়াছেন। ভদ্রলোকেরা দেখক সমাজের অবস্থা কি।” মান্দ্ৰাজ হইতে আমি বোম্বাই গমন করিলাম, এবং কিছদিন পরে কলিকাতায় ফিরিলাম। যদমণি ঘোষের চিত্তৰিকার। মান্দ্রাজ হইতে কলিকাতা ফিরিবার পর, বোধ হয়। ইহার কিছ পরে, একটি ঘটনা ঘটে যাহা উল্লেখযোগ্য। একদিন প্রাতে ৯৩ নম্পবর কলেজ মন্ত্রীটে বসিয়া ব্ৰাহম পাবলিক ও পিনিয়নের বা তত্ত্বকৌমদীর কপি লিখিতেছি, এমন সময় যদমণি ঘোষ নামে একজন ব্ৰাহম বন্ধ আসিয়া উপস্থিত। ইনি উড়িষ্যাজাত বাঙালী ছিলেন, এবং ইহাকে আমরা কেশববাবার বিশেষ অনাগত প্রচারক দলে 2भार्थाौ* शिक्षा व्ला ऊङ्गान्ङिाश । BDD DD DBDBDBD DBBB DBD DBBB DBD DOLDB DDBSEDDS DD DBDB DBBBB DDB BBD DD DS আমি। বসন বসন, সে কথা পরে হবে। যদ্যমণি। পরে বসছি, বলন না, নালিশ চলে কি না ? ज्याभि। यड ला चानि, फ़ल ना। যদ্যমণি। যাঃ, তবে তো আমার অনেক হাজার টাকা গেল। আমি । সে কি ? কার নামে নালিশ করবেন ? যদমণি । কেশবচন্দ্র সেনের নামে। আমি। সে কি ! কেশববাবার নামে নালিশ! তৎপরে যদবােব বলিলেন যে, কেশববাব, কমল কুটীর কিনিবার সময় তাঁহার নিকট কয়েক সহস্র টাকা কােজ লইয়া একখানি হ্যাম্প্রডনোটি লিখিয়া দিয়াছেন, তাহাতে সন্ট্যাম্পপ দেন নাই। পরে কথা হইয়াছে যে, কমল কুটীরের উত্তরে মঙ্গলবাড়ি পাড়ায় যদ্যমণির জন্য একটি বাড়ি নিমিত হইবে; সেই জমির দাম ও গহ নিমাণের ব্যয় NoNo 30