পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৩৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


এই কেনার মাত্রা এত অধিক হইত। যে উত্তরের পরিবতে চপেটাঘাত পাইতাম। এই কারণানন্দসন্ধান-প্রবত্তি হইতেই বোধ হয়, পি পড়ে ও পাখির গতিবিধি এত লক্ষ্য । রূপী বিড়াল। কেবল যে পাখি ভালোবাসিতাম। তাহা নহে, অন্যান্য জলতুও পষিতাম । উভয়ের অতিরিক্ত প্রেমবশত তাহদের প্রাণ যাইত। বিড়ালের মধ্যে রূপীর কথা । স্মরণ আছে। র্যাপী একটি মেনি বিড়াল ছিল। এমন সন্দের বিড়াল কম দেখা যায়। শাদার উপরে পেটের দই পাশে ও মাথায় কাল দাগ। লোমগালি পাের-পর, চক্ষ দটি হরিদ্রাবণ, ও লেজটি মোটা। এখন মনে করি, র্যাপী বোধ হয় দোআঁশলা DDD DDDS BBB BB DBBBD DDDD BB DDD S DBDBDD SS MDD LDBLLBLD BBDDDBDDBD S DD BDDD DBDB BBBDDB BBS DBDB DDDB BDD DBDDD পক্ষে সম্পন্দ্রমের হানি বোধ হইত, বিছানার উপর না হইলে তিনি শাইতেন না। উন্মাদিনী ও আমি যখন সন্ধ্যার সময় আসিয়া শয়ন করিতাম, তখন রূপী, বাবা ও মারি পাতের মাছের কাঁটার লোভও ত্যাগ করিয়া আমাদের দািজনের মধ্যে আসিয়া শইত। অনেক সময় তিনজনে গলা জড়ােজড়ি করিয়া ঘামাইতাম। মা শয়ন করিতে ভাঙিত, দেখিতাম রূপী গরীব দঃখীর মতো মশারির বাহিরে পড়িয়া আছে। তখন বড় দঃখ হইত, তাহাকে আবার মশারির মধ্যে আনিতাম। তাহা লইয়া মাতাপাত্রে বিবাদ হইত। অার এক খেলার সঙ্গী। আমাদের তখনকার আর একজন খেলার সঙ্গীর কথা সন্মরণ আছে। সে শেয়ালখাকী। শেয়ালখাকী একটা মাদী কুকুর। তাহার ইতিবত্ত এই। আমার বাবা একদিন দেখিলেন একটি কুকুরের বাচ্চাকে শেয়ালে লইয়া যাইতেছে। দেখিয়া তাঁহার দয়ার আবিভােব হইল। তিনি হৈ হৈ করাতে ও ঢ়িল ঢেলা মারাতে শেয়ালটা বাচ্চাটাকে ফেলিয়া পলায়ন করিল। বাবা বাচ্চাটা কুড়াইয়া আনিলেন। সে তখন অতি শিশ। তাহার পন্ঠের শেয়ালের কামড়ের ঘা শকাইতে অনেক দিন গেল। সে বড় হইল, বাবা তাহার নাম শেয়ালখাকী রাখিলেন। শেয়ালখাকী আমাদের বাড়িতেই রহিয়া গেল এবং পাড়ার বালক-বালিকার খেলিবার একটা মস্ত সওগী হইয়া দাঁড়াইল। এখন আমার ভাবিয়া আশচযা বোধ হয়, আমরা শেয়ালখাকীকে আমাদেরই একজন ভাবিতাম। সে সকল খেলাতেই সঙ্গে থাকিত। আমরা পাড়ার বালক-বালিকাদের সঙ্গে মিশিয়া কখনো কখনো বনভোজনে যাইতাম। পাড়ার নিকট কোনো জঙ্গলময় সম্প্রথান পরিস্কার করিয়া সেখানে উনান করিয়া প্রত্যেকের বাড়ি BBB BD BD DD DBD DBD DBDBD DDBLL SS BDDDBD DDBS DBBB BBB নিমন্ত্রিত ব্ৰাহমণ, এবং তাহদের মা খড়ী জেঠীরা হইতেন অতিথি। পরম সমুখে বনভোজন হইত। শেয়ালখাকী আমাদের সঙ্গে সমস্ত দিন বনে থাকিত। আহারালেত আমরা যখন বনে লকোচুরি খেলিতাম, তখন শেয়ালখাকী বনের মধ্যে লাকাইত, আমরা খাজিয়া বাহির করিতাম। আমরা তাহাকে খেলার সঙ্গী বলিয়া জানিতাম। শেয়ালখাকীর দাইটি কীতি স্মরণ আছে। একবার আমরা কয়েকজন বালকে Se