পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৩৪৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৮৭৯ ] ^ ম্যাডাম ব্লাভাট্রিক্কী ও কর্ণেল অলকটু ২৯৭ এক জন বন্ধু আমাকে ও লালসিংকে লইয়া গিয়া ভঁহাদের সহিত পরিচয় করাইয়া দিলেন। আমাদিগকে পাইয়া তাহারা আনন্দিত হইলেন, এবং আমাদিগকে তঁহাদের দলস্থ করিবার জন্য চেষ্টা করিতে লাগিলেন। দিনের পর দিন তঁহাদের সহিত মহা তর্ক বিতর্ক চলিতে লাগিল । আমি তঁহাদিগকে বলিতাম, “আপনাদের অনেক কথার সহিত আমার মিল আছে, কিন্তু আপনারা ঈশ্বরের যে ভাব ব্যক্ত করেন, তাহার সাহিত আমার মিল নাই। আপনাদের ভাব অদ্বৈতবাদের ভাব ; আমি ভক্তিধৰ্ম্মাবলম্বী, আমার ঈশ্বর জীবন্ত শক্তিশালী জ্ঞানময় ও প্ৰেমময় পুরুষ, তঁহার সঙ্গে প্রেমযোগেই মানবের পরিত্ৰাণ।” ইহা লইয়া ম্যাডাম ব্লাভাটুকী আমাকে অনেক উপহাস বিদ্রুপ করিতেন ; আমি তাহার প্ৰতি কৰ্ণপাত করিতাম না । আমি লালসিংকে বোম্বাইয়ে রাখিয়া গুজরাটে গেলে, লালসিং প্রায়ই তঁহাদের নিকট যাইতেন। আসিয়া শুনিলাম, তাহারা লালসিংকে পুত্রের ন্যায় বুকে ধরিয়া লইয়াছিলেন। দেখা করিতে গেলে ধরিয়া রাখিতেন ; উঠিতে গেলে উঠিতে দিতেন না ; এটা ওটা খাইতে দিতেন ; সে শিখের ছেলে, তাহার মাথায় লম্বা চুল ছিল,—ম্যাডাম ব্লাভাট স্বীর সঙ্গিনী এক জন মেম তাহার চুল আঁচড়াইয়া পরিষ্কার করিয়া বাধিয়া দিতেন। আমি গুজরাট হইতে ফিরিয়া যখন তঁহাদের সঙ্গে দেখা করিয়া বিদায় লইলাম, এবং লালসিংকে লইয়া স্বদেশাভিমুখে প্ৰস্থান করিলাম, তখন ম্যাডাম ব্লাভাট স্বী হাসিয়া বলিলেন, “তোমাদিগকে এত বোঝান বৃথা হইল।” সণ্ডে মিরার কাগজে ঈশ্বরের উক্তিতে গালাগালি - বোম্বাই প্রেসিডেন্সি বাস কালের তৃতীয় স্মরণীয় ঘটনা গুজরাটের রাজধানী আহমদাবাদ নগরে ঘটে । তাহা এই। এই সময় কলিকাতায় রবিবাসরীয় fistics's fictint (Reica ("Devotional' column (q). ঈশ্বরের