পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৪৩৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৮৮৮ ] বিবিধ স্কুল ; ব্রিটিশ মিউজিয়ম লাইব্রেরি ○ アぐ বল। যে ছেলে ঠিক করেছে সে হাত তুলুক।” যেই বলা, অমনি একটি ছেলে হাত তুলিল, এবং ফলটি বলিয়া দিল । "আপার মিডল ক্লাস’ স্কুল।--আপার মিডল ক্লাস স্কুলে গিয়া দেখি, ভূগোল ও ভূতত্ত্ব বিদ্যাতে বালকদের অদ্ভুত পারদর্শিতা। সমগ্ৰ পৃথিবীর পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ যেন তাঁহাদের নখের আগায় রহিয়াছে। তার পর সেখানে আর এক ব্যাপার দেখিলাম ; এক এক শ্রেণীতে ২৫-৩০ জন ছাত্রের বেশী হইবে না, কিন্তু একই সময়ে দুই জন শিক্ষক কাৰ্য্য করিতেছেন । বালিকাদিগের বোর্ডিং স্কুল।--কেবলমাত্র বালকদিগের স্কুল দেখিয়া ক্ষান্ত হই নাই। একটি বালিকাদিগের বোর্ডিং স্কুলও দেখিতে গিয়াছিলাম। কি শুঙ্খলা, কি পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ! কি পাঠ ক্রীড়া প্রভৃতির সুনিয়ম । যাহা দেখি, তাহাতেই চমৎকৃত হইতে হয় । অবশেষে তত্ত্বাবধায়িক যে গৃহে বালিকারা শয়ন করে তাহা দেখাইতে লইয়া গেলেন। দেখিলাম সেটি একটি হাসপাতালের ঘরের ন্যাক্স বড় হল (ha1]) ; তাহাতে অনেকগুলি বালিকার শয়নের শয্যা আছে ৷ হলের এক পাশ্বে একটি উচ্চ কাঠের মঞ্চ (platform) । এক জন শিক্ষয়িত্রী বালিকাদের সঙ্গে এক ঘরে শয়ন করেন, তাহার শয্যাটি ঐ মঞ্চের উপর রহিয়াছে। আমি তত্ত্বাবধায়িকাকে জিজ্ঞাসা করিলাম, ‘শিক্ষয়িত্রী কাঠের মঞ্চের উপর শয়ন করেন কেন ?” তিনি বলিলেন, “ওখানে শুইয়া শুইয়া বালিকাদের গতিবিধি দেখা যায় ।” লণ্ডনের ব্রিটিশ মিউজিয়ম লাইব্রেরি। —লণ্ডন বাস কালে আমি অনেক দিন ব্রিটিশ মিউজিয়ম লাইব্রেরিতে গিয়া পড়িয়াছি । শুনিয়াছি, সেখানে এত বইয়ের আলমারি আছে যে, একটির পাশে আর একটি দাড় করাইলে ছয় মাইল পূর্ণ হইতে পারে ; অথচ কাজের কি সুব্যবস্থা! পাঠক একখানি নূতন বই চাহিবামাত্র ৫ মিনিটের R