পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৪৭৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


83 গৃহে নারীর অধিকার । , { سماواة. গৃহে নারীর অধিকার।-প্রথম কারণ, মধ্যবিত্ত ভদ্র ইংরাজ গৃহস্থের ভবনে নারীর অধিকার। ইংরাজের গৃহে গৃহিণী সত্য সত্যই গৃহস্বামিনী, রাণী । পুরুষ উপাৰ্জক, সুতরাং বিচারের দিক দিয়া দেখিলে তাহারই কৰ্ত্ত হইবার কথা। কিন্তু ইংরাজ জাতির সামাজিক ব্যবস্থা অনুসারে গৃহিণীই রাণী। পুরুষ গৃহে তাহার প্রজা বা প্ৰধান মন্ত্রী। পুরুষ যাহা উপাৰ্জন করেন তাহা গৃহিণীর হস্তে দিয়া, আঁহারই কর্তৃত্বাধীন হইতে ভালবাসেন। গৃহের ব্যবস্থা বিষয়ে নিশ্চিন্ত থাকিয়া তিনি পাঠ চিন্তাদি দ্বারা আত্মোন্নতি সাধনে নিযুক্ত হইতে পারেন। গৃহিণীর সর্বময় কর্তৃত্বের সঙ্গে সঙ্গে নারী জাতির শিক্ষা ও স্বাধীনতা থাকাতে অতি চমৎকার ফল ফলিতেছে। নারীগণ সর্ববিধ জ্ঞান চৰ্চার অংশী ও সর্ববিধ শুভ চেষ্টার সহায় হইতেছেন। আমি কোনও বক্তৃতাদি শুনিতে গেলে সভায় অৰ্দ্ধেক নারী দেখিতে পাইতাম। অনেক সময়ে কোনও বিখ্যাত আচাৰ্য্যের উপদেশ শুনিবার জন্য স্ত্রীলোক ঠেলিয়া উপাসনা মন্দিরে প্রবেশ করিতে হইত। কোন ও ভদ্রলোকের বাড়ীতে নিমন্ত্রণাদিতে গেলে, বাড়ীর স্ত্রীলোকদিগের সহিত কোনও জ্ঞানের ব। সামাজিক উন্নতির প্রসঙ্গে কোথা দিয়া সময় যাইত জানিতে পারিতাম না। অথচ প্ৰত্যেক ভদ্র গৃহস্থের গৃহে নারীগণের স্বাধীনতার সঙ্গে সঙ্গে এরূপ সকল সামাজিক শাসন ও সুনিয়ম দেখিতে পাইতাম যে, দেখিয়া মন মুগ্ধ হইত। এদেশের লোক নারীর অবরোধ দেখিয়া অভ্যস্ত ; তাহাদের স্বভাবতঃ মনে হইতে পারে যে, যে-সমাজে নারীগণ সম্পূর্ণ সামাজিক স্বাধীনতা ভোগ করেন, তঁাহারা বোধ হয় নীতি অংশে হীন। অন্য দেশের কথা জানি না, ইংরাজ মধ্যবিত্ত ভদ্র গৃহস্থের নারীগণ পবিত্রতার আদর্শ বলিলে অত্যুক্তি হয় না। ইহারাই ইংরাজ জাতির গৌরব ও শক্তির মূলে।