পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৩৩০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শিবনাথ শান্ত্রিীব আত্মচাবিত [ ১৩শ পরিঃ অবতরণ করিয়া দেখি যে প্ৰকাশচন্দ্র রাজকাৰ্য্যে স্থানান্তবে যাইবার জন্য ষ্টেশনেহ দণ্ডায়মান। তাড়াতাড়ি বেশি কথা হইল না । প্রকাশ-সে কি ? তুমি যে আসবে, সে সংবাদ তো দেও নাই । আমি-ভাহ, প্ৰথম আমার এখানে নামবার কথা ছিল না । কাল আসবার সময় স্থির হলো, তাই খবর দিতে পারিনি । প্ৰকাশ-যাও, আমার বাড়ীতে যাও, সেখানে অঘোবিকামিনী আছেন, আতিথ্যের ভাবনা নাই । চারদিন অপেক্ষা করে, আমি কাজ সেরে আসছি। এই বলিয়া অপর দিকের ট্রেনে উঠিয়া যাত্ৰা করিলেন । আমি গিয়া অঘোরকামিনীর গৃহে অবতীর্ণ হইলাম। অঘোরকামিনীর ভালবাসা ও আতিথ্যের গুণে র্তার বাডী যেন আমাৰ তীৰ্থস্থানের মত বোধ হইত। আমি পবম সুখে তার গৃহে বাস কবিতে লাগিলাম । সেখানকার ভদ্রলোকদের সহিত আলাপ কবিয়া, তাহাদের সাহায্যে একটা বক্তৃতা দেওয়া গেল, এবং অপরাপর কাজ ও কিছু করা গেল। কিন্তু প্ৰকাশচন্দ্রের আর দেখা নাহি । আমি এখানে মে মাসের শেষভাগ পৰ্য্যন্ত সপ্তাহের অধিক কাল যাপন কবিলাম। এই কালের মধ্যে একটা কাজ। সারা গেল। ন্যাশনাল ইণ্ডিয়ান এসোসিয়েশনের সভ্যগণের নিকট একখানি পারিবারিক উপন্যাস লিখিয়া দিব বলিয়া প্ৰতিশ্রুত ছিলাম । সেই প্রতিজ্ঞাটা এখানে পুৱণ কবিলাম। এই ৮১০ দিনের মধ্যে “মেজ বউ” নামক একখানি উপন্যাস লিখিয়া কলিকাতাতে প্রেরণ कङ्गिणांभ । প্ৰকাশচন্দ্ৰ আর আসিলেন না ; আবার বিভ্ৰাট উপস্থিত, পাখোয়ের টাকা কোথায় পাই ? ভাবিলাম, অঘোরকামিনীর হাতে প্ৰকাশ BB DBD D DB DDD DDDD SBDD DB DB BD DDD থাকিতে পায়িবেন না, কিন্তু তার অসুবিধা • ঘটিতে পারে। সুতরাং