পাতা:আদায়ের ইতিহাস - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


RR VENİ তরুণ আমলা গাছটি যত বঁকা হইয়া যায়, তার বঁাক মন যেন অনির্বচনীয় পুলকে ততই খাড়া হইয় ওঠে। এই সতেজ গর্বিত আনন্দে সাপের মত মনের কোন অন্ধকার কোণে কুণ্ডলী পাকাইয়া পড়িয়া থাকে, সাপুড়িয়ার বঁাশীর মত ঝড়ের সা-সঁ৷ আওয়াজে ঘুম ভাঙ্গিয়া ফণা। উচু করে। ঝড় থামিয়া যাওয়ার পরেও এই উত্তেজনার প্রভাব মিলাইয়া যাইতে কয়েকদিন সময় লাগে, ত্ৰিষ্টপের অনুভূতি রসে ভিজিয়া সজীব হইয়া থাকে। ধীরেনের বাড়ীর অবস্থানটি ত্ৰিষ্টগুপের ভারি ভাল লাগিল। এ . সহরতলী পুরানো, সহরের পরিসর বাড়ানোর প্রয়োজনে নূতন সৃষ্টি হয় নাই। পুরানো বাড়ীগুলি এলোমেলো ভাবে বসানো, রাস্তা আঁকাবঁকা। আগাছাভিরা বাগানের কয়েকটি টুকরা এখানে ওখানে বসানো আছে। ধীরেনের বাড়ীর অদূরে পানার আস্তরণ বিছানো একটি পুকুর। কাছে ও দূরে অনেক নারিকেল গাছ মাথা উঁচু করিয়া দাড়াইয়া আছে। রাস্তায় ছোট ছেলেদের মার্বেল খেলায়, বাড়ীর সামনে রোয়াকে বসিয়া বড় ছেলেদের জটিল করায়, উবু হইয়া বসিয়া এক প্রৌঢ়ের হুক হাতে তামাক খাওয়ায়, ছেলে কোলে এক বাড়ীর দুয়ার হইতে বাহির হইয়া একটি আধ ময়লা শাড়ী পরা তরুণীর আরেক বাড়ীর দুয়ারে ঢুকিয়া পড়ায়, তার এখনকার শান্ত মানসিক অবস্থার সঙ্গে কেমন একটা আশ্চৰ্য সামঞ্জস্য সৃষ্টি হইতেছে। বাড়ীর ভিতরে গৃহসজ্জার মধ্যেও একটি সর্বাঙ্গীন সঙ্গতি তার “খড়ই তৃপ্তিকর মনে হইল। এ সব সংসারে বিশৃঙ্খলার চেয়ে বেশী চোখে পড়ে অসঙ্গতি। ভাঙ্গা চৌকীর পাশে মস্ত দামী ড্রেসিং টেবিল, পেরেক মারা কাঠের চেয়ারের পিঠোরভীন সুতার কাজ করা খােল, * দামী ফ্রেমে বাঁধানাে তৈলচিত্রের পাশে আঠা দিয়া দেয়ালে আঁটা মাসিকের ছবি, ময়লা বিছানার চাদরে ধবধবে পরিষ্কার ওয়ারপরানো তেল-চটচটে বালিশ, পিাড়ির সঙ্গে কার্পেটের আসন, সযত্নে সাজানো জিনিয্যের একটি তাকের নিচেই অযত্নে ছড়ানো জিনিষের