পাতা:আদিশূর ও বল্লালসেন.pdf/৪৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আদিশূর ও বল্লাল সেন । ף9י শূরের ক্ষত্ৰিয়ত্ব অথবা অম্বষ্ঠত্ব প্রতিপাদিত হইতে পারে না । এবং ইহাতে আদিশূরবংশীয় কোন নৃপতির নামোল্লেখ অথবা বর্ণনা নাই। সুতরাং আদিশূর এবং বল্লাল, উভয়েই দুই স্বতন্ত্র বংশে জন্ম গ্রহণ করিয়াছিলেন । রাজেন্দ্র বাবু তৎপ্রদর্শিত প্রস্তরফলক ইত্যাদির প্রমাণ উল্লেখ পূর্বক লিখিয়াছেন, “কুলাচাৰ্য্যঠাকুর-কৃত পঞ্জিকাতে আদিশূরকে ক্ষত্রিয় বংশের সূৰ্য্য ( ক্ষত্ৰিয়বংশহংসঃ) বলিয়া বর্ণন করা হইয়াছে । বাখরগঞ্জ এবং রাজসাহী অঙ্কিত শ্লোকে সেনবংশীয় রাজগণ চন্দ্রবংশাবতংস অর্থাৎ চন্দ্রবংশীয় ক্ষত্রিয়দিগের সন্তান বলিয়া উল্লিখিত হইয়াছেন, রাজসাহীর প্রস্তরাঙ্কিত শ্লোকে সামন্তসেনকে প্রধান ক্ষত্রিয়বংশ সকলের মস্তকমালা নির্দেশ করিতেছে । অতএব আধুনিক জনপ্রবাদ গ্রহণ করিয়া এই সকল প্রমাণ কখনই অগ্রাহ করা যাইতে পারে না, এবম্বিধ জনপ্রবাদ যে ভ্রমে উৎপন্ন হইল, তাহ নিরূপণ করাও কঠিন নহে। প্রাচীন সময়ে উত্তর পশ্চিমাঞ্চলে অম্বষ্ঠ নামে এক ক্ষত্ৰিয়বংশ বাস করিত বিষ্ণুপুরাণে উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় ভিন্ন ভিন্ন জাতির উল্লেখ স্থলে ঐ ক্ষত্রিয়দিগের উল্লেখ আছে (মদ্রোঃ রামাস্তথাম্বষ্ঠাঃ পারসিকাদয়স্তথা ) পাণিনি এক শব্দের ক্ষত্রিয় জাতি ও তাহাদিগের বাসস্থান—এই দুই প্রকার অর্থাত্মক শব্দের উদাহরণ স্থলে অম্বষ্ঠ শব্দের উল্লেখ করিয়াছেন। মহাভারতে ঐ শব্দ এক ক্ষত্রিয় জাতি এবং ক্ষত্রিয় রাজার নামবিশেষে ব্যবহার আছে, এবং মেদিনী, বিশ্বপ্রকাশ ও শব্দরত্নাকর অম্বষ্ঠ, অর্থে দেশ বিশেষের সংজ্ঞা উল্লেখ করিয়াছেন ।