পাতা:আমার বাল্যকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


अी भां ब्र बां ज1 क था। V আহার সামগ্ৰী প্ৰস্তুত করলেন-সে মাছের ঝোল ভাত আর ভুলব না ! আমাদের বাহনগুলি সারি সারি চলেছে-৮১০টা বোটআমরা রাত্রিশেষে পলতার বাগানে দলবলে গিয়ে উপনীত হলুম। বোটে আমাদের বিদূষক ছিলেন নবীনবাবু ; তার হাস্যপরিহাসে সন্ধ্যাটা খুব আমোদে কেটে গেল। তঁর বিদ্রুপের বাণ বিশেষরূপে যার উপর প্রয়োগ করা হচ্ছিল সে লোকটি বে-বাবু। আমি তাকে হাবু বলব। বাবু শব্দের নবীনবাবু এক ছড়া বেঁধেছিলেন তা হাবুবাবুতে বেশ খেটে যায় বাববো বহবঃ সন্তি বাবুয়ানা পরায়ণা হাবুবাবু সমো বাবু ন ভূতো ন ভবিষ্যতি।। তিনি একজন কিন্তু প্ৰধান লোক-ঠাণ্ডার ভয়ে গলায় সালের গলাবন্ধ ও গায়ে গরম কাপড় জড়িয়ে মুড়িসুড়ি দিয়ে বসে ঝিমচ্ছেন। বোটের ভি তাঁর একপাশে একটা ছোট কাচের আলমারী ছিল । নবীনবাবু যখন হাবুর প্রতি লক্ষ্য করে গম্ভীর ভাবে প্ৰস্তাব করলেন যে ঐ কাপড়ের পাসেলখানা তুলোয় জড়িয়ে এই গ্লাসকেসে পুরে রাখলে ভাল হয়, তখন আমাদের হাসির ফোয়ার ছুটে গেল । পলতায় নেমে আমরা দলে দলে এদিক ওদিক ছড়িয়ে পড়লুম। প্ৰধান দুই দল-একদল চড়াই ভাগী রান্নার চারিদিকে অন্য দলের কেন্দ্র হচ্ছেন- চাটুয্যেমশায়। ভবিষ্যতে তিনি আমাদের একজন পরম আত্মীয়ের মধ্যে গণ্য হলেন । সে সময়ে তঁর বয়স হয়ত ৪০ পেরিয়ে থাকবে কিন্তু বালকের মত র্তার ভাবভঙ্গী উৎসাহ কলরব, নৃত্যগীত লীলাখেলায় আমাদের সকলকে মাতিয়ে তুললেন। তার তখনকার গান মনে পড়ছে ব্যাটাছেলের (মুখে)* কড়ি সব লোকে কয়, * সাহসের কাৰ্যে ব্যাটাছেলের পরিচয় ।

  • কথাটির সামান্য একটি অক্ষর বদল করিলাম ।