পাতা:আমেরিকার নিগ্রো - রামনাথ বিশ্বাস.pdf/১২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চিকাগাে হতে ডিট্রয় ১২৫ আত্মকেন্দ্রিক নয়। এখানে আমেরিকান্ গুণ্ডাদের প্রাধান্য মোটেই নেই। পিস্তলের বদলা পিস্তল, চাকুর বদলা চাকু, লাথির বদলা লাথি, এখানে প্রচলন করতে একটুও কষ্ট হবে না। নিগ্রো পত্রিকার প্রচলনও মন্দ নয়। সাধারণ নিগ্রোরা উইলী এবং ম্যাকের ভক্ত ছিল কিন্তু কখনও চোখে দেখেনি। না দেখাটা ভালই হয়েছিল। | এই ত গেল এক দিকের কথা। ম্যাক যখন পথে চলত তখন গাম্ভীৰ্য বজায় রাখার চেষ্টা করত। আমেরিকার সেটা পছন্দ করত । সাদাদের পাড়ায় বেড়াবার সময় ঠেলা ধাক্কা খেতে হত। নিগ্রো পাড়ায় এসে গল্পের আকারে বলত। নিগ্রোদের ঠেঙ্গ ধাক্কা খাওয়া গা-সওয়া হয়ে যাওয়ায় কেউ এসব বিষয় নিয়ে আলােচনা পৰ্যন্ত পরিত্যাগ করেছিল। ম্যাক প্রায়ই গীজাতে যেত এবং উপাসন হয়ে যাবার পর নিগ্রোদের ঠেল। ধাক্কা খাওয়ার কথা সকলের কাছে বলত। অনেকে বিষয়টা গ্রহণ করত অনেকে পরিত্যাগ করত। নিগ্রো পাত্রীরা এসব কথা মােটেই পছন্দ করত না। কি জানি তাদের ভাতা বন্ধ হয়ে যায়, সেই ভয়ে ভীত হয়ে এসব কথা যাতে গীজাতে না হয় সেদিকে অনেকেই লক্ষ্য রাখত। কিন্তু ম্যাকের অনুকরণ করে নিগ্রো পাড়ার সকল নিগ্রো গীজাতেই উপাসনার পর এসব কথা নিয়েই আলােচনা করতে আরম্ভ করল। পাত্রীদের আর ক্ষমতা থাকল না এসব কথা বন্ধ করে। বিষয়টা ক্রমেই উগ্র হয়ে উঠল। পাত্রীরা যতই বলছিল এক গালে চপেটাঘাত করলে অন্য গাল এগিয়ে দাও, এবং সেই সংগে ইণ্ডিয়ার মহাত্মা গান্ধির অহিংস চিন্তাধারারও উপমা দিচ্ছিল, তখন নিগ্রোদের মধ্যে অবতারবাদের প্রতি প্রবল অশ্রদ্ধা জেগে উঠে। ম্যাক ভয়ানক চতুরতার সঙ্গে নিগ্রো পল্লীতে শেতকায়দের অত্যাচার