পাতা:আমেরিকার নিগ্রো - রামনাথ বিশ্বাস.pdf/৪৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উইলী। ৩৯ কাছে দিয়েছিলাম এবং খুকী আমার মায়ের হাটুর ওপর তার মুখ রেখে কঁদছিল তখন আমার কত আনন্দ। সেই যা আনন্দ জীবনে কখনও ভুলব না। খুকী আমার মায়ের কাছে মুখ রেখে যখন কাদছিল তখন আমি আনন্দে নেচেছিলাম। আজ আমার জীবন সার্থক, একটি জীবন রক্ষা করতে পেরেছি। খুকী শ্বেতকায়, হয়ত সে বড় হয়েই আমাকে, আমার জাতকে ঘৃণা করতে আরম্ভ করবে। হয়ত সে আমার জাতের নির্বংশ হবার কামনা করবে। তার ইচ্ছামত আমার জাতের সর্বনাশ কামনা করুক কিন্তু আমার জাত ধ্বংস হবে না, হবে তারই জাত নিশ্চিহ্ন। খুকীকে বললাম, এখনও তুমি নিশ্চিন্ত নও খুকী, তােমার মা বাবার ঠিকানা আমার মায়ের কাছে বল, তিনিই তােমাকে তােমার মা বাবার কাছে পৌছে দেবেন। এখন আমি অন্য রুমে যাই, তুমি ভেতর থেকে দরজাটা বন্ধ করে দাও। আমার মা এখনই তোমাকে কিছু খাবার দেবেন। • অন্য রুমে আমি থাকতাম। সে রুমটাতেই আমার পরিচিত বন্ধু বান্ধবরা আসতেন। যে পশুরা আমাকে এই মেয়েটিকে হত্যা করতে নিয়ােজিত করেছিল সেই পশুরাও আমার রুমে আসত। রুমে বসে থাকা ভাল মনে করলাম না। বাথ রুমে প্রবেশ করে বাথ টাব জলে ভর্তি করে অনেকক্ষণ শুয়ে রইলাম। মনের উত্তেজনা, শরীরের ক্লান্তি চলে গেল। তারপর আমার কাকার বাড়ি ব্রঙ্গের দিকে রওয়ানা হলাম। জামতাম্ মা বর্তমানে খুকীর কোন অনিষ্ট হবে না। নিশ্চিন্ত মনে কাকার ঘরে গল্প গুজব করছিলাম। কাকা সংবাদ পত্র দেখিয়ে বললেন, “উইলী দেখে একটি ধনী লােকের মেয়েকে ডাকাতের হল চুরি করে নিয়ে গেছে। তাঁর মেয়েকে যে উদ্ধার করে দিতে পারবে তাকে = 5.