প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/১২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


| আষাঢ় ১২৮২। এমির অধরের কোমল ভাগ কিঞ্চিৎ বিস্তীর্ণ বলিয়া অপেক্ষাকৃত স্থলতর দেখায়, | उांशष्ठ cनोमाfिद्र कुन मां रुहेशा बद्रः বৃদ্ধি হইয়াছে। ঈষদ্ধাস্যকালীন যিনি একবার এমির কমনীয় ওষ্ঠাধরের ঈষৎ সঞ্চালন, ঈষৎ বিকম্পন দেখিয়াছেন, সরোবরের বাত কম্পিত তরঙ্গোপরি প্রতিবিম্বিত শরচ্চন্দ্রের নৃত্য আর র্তাহার নিকট শোভা পায় না। হেলেনার আনন পদ্মের ন্যায় প্রফুল্ল ও সুসজ্জিত, এমির-চন্দ্রের ন্যায় বিশদ ।” নবযৌবন । যৌবনের লালিত্য, শ্ৰী, স্বর ও গতিতে প্রকাশ পাইতেছে। প্রফুটিত পুষ্পের ন্যায় চতুর্দিকে সৌরভ ছুটিতেছে। এমি চতুর্দশবর্ষীয়া, যৌবনের প্রথম সোপানে পদার্পণ করিয়াছেন । এখন বালিকা বা তরুণী উভয়ই বলা যায়। বালস্বভাবসুলভ চঞ্চলতার প্রণয় কাহাকে কহে জানেন না, কিন্তু হৃদয় মুকুলিত, অনুরাগ-হিল্লোল-স্পর্শে অম্প, দিনেই বিকশিত হইতে পারে। যৌবনোচিত লালিতা এবং অঙ্গপ্রত্যঙ্গাদি পূর্ণতা প্রাপ্ত হইতেছে। হেলেনার | সৌন্দর্ঘ্য যুবজনেরই আকর্ষক-এমির | মাধুর্য বালক বৃদ্ধ যুবা সকলেরই মনো: হারী। একের নিশ্চিন্ত তরলভাব, অন্যের | চিন্তাশীল গম্ভীর ভাব। উভয়েই সরল} তার প্রতিমূৰ্ত্তি—কুটিলতা ও কপটতা চিত্তবিনোদিনী। মনের অন্ধকার মুক্ত হয়, দুঃখ দূর হয়। কাহারও হৃদয়ে স্থান পায় না। হেলেন | “হেলেনার বয়স ষোড়শ বৎসর, পরিবর্তে যৌবনের গাম্ভীর্য জন্মিয়াছে। ! حــبــصيبيتسببت تصكنيست *** >>Q | স্পষ্টবাদিনী সরলা, এমি বিশ্বস্তম্বদ। সরলা । হেলেন মনের ভাব গোপন করিতে পারেন না, স্পষ্ট প্রকাশ করিয়া ফেলেন, এজন্য তিনি প্ৰগল্‌ভ বলিয়া খ্যাত। অভিমান, ভয় ইত্যাদি ভাবোদয় হইলেই হেলেন বাক্যেতে প্রকাশ করিয়া ফেলেন। এমি মৌনস্বভাব ; ভাবোদয়ে মুকুলিতাক্ষী হইয়া অধোবদনে নিরুত্তর 1 থাকেন। হেলেনা তর্কে পরাজিত হইয়াও পরাজয় করেন, এমি বিজয়িনী হইয়াও । পরাজিত হয়েন। হেলেন প্রস্ফুটিত মল্লিকা ফুল, দূর হইতে সৌরভে ও সরল শ্বেতবর্ণে বিলাসীগণকে আকর্ষণ করে । এমি গোলাপ মুকুলের ন্যায়। র্তাহার অনতিপরিস্কট রূপ, অনতিপরিস্ফুট সৌরভ অল্প লোককে আকর্ষণ করে, কিন্তু কেহ যদি যত্নে গ্রহণ করেন, মধুর গন্ধে তৃপ্ত হইতে থাকিবেন, কদাপি বিরক্ত হইবেন না ; বরং ক্রমে অধিকতর সৌরভ ভোগ করিবেন।--” সমালোচ্য গ্রন্থের অন্যতম গুণ ইহার বর্ণনা। আধুনিক উপন্যাসের বর্ণনা একটী অসাধারণ গুণ। বর্ণমার গুণাগুণে চিত্রকে উজ্জল অথবা বিবর্ণ, পূর্ণ অথবা অপূর্ণ, সুন্দর অথবা 'কুৎসিত দেখায় । । গোবিন্দবাবুর বর্ণনাগুলি উজ্জল, পূর্ণ | এবং সুন্দর। র্তাহার বর্ণনার আবার বৈচিত্র্য থাকাতে তদীয় বর্ণনাশক্তির অধিকতর গৌরববৃদ্ধি হইয়াছে। নগরের ধূমধাম, কোলাহল, ও কৃত্রিম সৌদর্ঘ্য, .*