প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৩০৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


SiAASSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSLSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSS আর্য দর্শন | কাৰ্ত্তিক ১২৮২ । প্রকাশিত হয়, সকল সময়, এবং সকল অবস্থায় তাহাও আবার প্রকাশ করিবার যোগ্য বলিয়া গণনীয় হয় না । মানব হৃদয়ে যে সমস্ত ভাব যখন সমুদিত হয় তাঙ্গ যদি সকল প্রকাশ করা যায় তাহা হইলে নিতান্ত অৰ্ব্বাচীন ও নিৰ্ব্বোধের ; কার্য্য করা হয়। হৃদয়-ভাবের অধিকাংশ | অপ্রকাশিত ও গোপনে রাখিতে হয় । কেবল ক্ষোভের বিষয় এই, যাহা প্রকাশ প্রকাশিত হয় না। নহিলে এক সঙ্গে মানব হৃদয়ে যত প্রকার মিশ্রিত ভাব উদিত হয় তাহার কি সকল ভাব প্ৰকাশ করিবার উপযুক্ত বলিয়া গণনা করা যাইতে পারে ? আবার হৃদয়ে হয়তো এক | প্রকার ভাবের উদয় হইল, বাহিরে প্রকাশ করিবার সময় তাহাকে অসুরঞ্জিত করিয়া অন্যবিধ আকারে প্রকটন কদু আবশ্যক। বোধ হয়। মানবের ভাষা অনেক সময়ে হৃদয় ভাব গোপন করিবার জন্যই প্রযুক্ত হয়। টালিরা গু কহিয়া গিয়াছেন, মানবীয় ভাষা ভাব প্রকাশের জন্য যত না ব্যবহৃত : হয়, তাহ গোপন করিবার জন্যই অধিক তর ব্যবহৃত হইয়া থাকে। " *** * কিন্তু ভাষা হৃদয়-ভাব প্রকাশ করিতে | যেমন পরাস্থ, গোপন করিতে ও তেমনি | অসমর্থ। পূৰ্ব্বেই বলা হইয়াছে, হৃদয়ভাব গোপন করিতেগেলেও তাহার কিয়দংশ | বাহিরে প্রকটত হইয়া পড়ে। প্রকটিত ন হইলে ও অবস্থা, ঘটনা এবং লোক প্রকৃতি বোধ থাকিলে অপরের স্বীয় } ভাব করিবার উপযোগী, তাহা সম্যক রূপে । অনেকাংশে অনুমান করিয়া লওয়া ও যাইতে পারে। প্রকাশযোগ্য হৃদয়ভাব প্রকাশ করা যেমন অভিনেতার গুরুতর কাৰ্য,প্ৰকাশযোগ্য হৃদয়ভাব যাহাতে পরের নিকট বাক্ত না হইয়া পড়ে এরূপে অভিনয় কার্য সম্পূদন করাও র্তাহার তত দৃর আবশ্যক। এ N . আবার অনেক সময়ে অভিনেতার পক্ষে কেবল হৃদয়ভাব গোপন করিলে যথেষ্ট হয় না, ঘটনা, অবস্থা এবং আত্ম প্রকৃতিও গোপন করতে হয়। কৌশল পূৰ্ব্বক সাবধানে অভিনয় কাৰ্য্য সম্পাদন করিতে না পারিলে, বাহিরে যাহা গোপন করিবার চেষ্টা করা যায় অনেক সময় তাহার হয় তো কিছু কিছু প্রকাশ হইয়া যাইতেছে, দর্শকমণ্ডলীর এমত অনুভব হইতে পারে। , তার একপ্রকার হৃদয় ভাব ও নীরবে অভিনীত হয় এবং তাহ অভিনয় করা ও সুসাধ্য নহে। নাটকে এমত অনেক সংস্থান বিন্যস্ত হয়,যথায় হৃদয়ভাব অবস্থা | স্তরে অকস্মাৎ পরিবর্তিত হয়। আনন্দ ও উৎসব সময়ে হয়তে কোন দুঃসম্বাদ উপ ত হইয়া হৃদয়ভাব একেবারে বিপরীত দিকে প্রত্যাবৰ্ত্তিত করিয়া দিল,পাপানুষ্ঠান সময়ে কেহ হয়তে হঠাৎ ধুত হইয়া নিতান্ত অ প্রস্তুত ও লজ্জায় পতিত হইল। এই প্রকার নাটকীয় সংস্থানে অভিনয় করা বড় সহজ নহে, এখানে বাক্যের প্রয়োজন নাই অঙ্গ চালনার প্রয়োজন নাই, কেবল নীরবে এরূপে স্তম্ভিত হওয়া চাই যে দর্শক মণ্ডলী যেন ঠিক হৃদয়ভাবের উন্নয়ন করিতে পারেন।