প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৩০৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


SSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSAAAASSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSS নাটকাভিনয় । কাৰ্ত্তিক ১২৮২ ৷ 、ふ○ নাটকের যে অসংখ্য স্থানে নীরব । অভিনয়ের প্রয়োজন হয় তাহা উল্লেখ করা যাইতে পারে না। সেকসপিয়রের নাটক বলির অভিনয় করিতে গেলে সপ্রকার অনেক স্থল উপনীত হয়। উৎকৃষ্ট নাটক মাত্রই এই প্রকার সংস্থানে পরিপূর্ণ। এজন্য যাহারা নীরব অভিনয়ের বিষয় পুঙ্খানুপুঙ্খ জানিতে ইচ্ছা করেন র্তাহাদিগের উৎকৃষ্ট শ্রেণীর নাটকালোচনা কব নিতান্ত আবশ্যক। হৃদয়ভাবের আবেগ, সমস্ত হৃদয়েই নিলীন হয় না। বহ্নি তেজস্বী হইলে যেমন তাহ প্রজ্বলিত হইয়া শিখা দ্বারা বহির্দেশে সমস্ত তেজ ও উষ্ণতা বিনির্গত করিয়া দেয়, তেমনি হৃদয়ের উষ্ণতা সঞ্জাত হইলে তাহা বাহিরে বিমুক্ত হইতে চাহে। বাক্যই হৃদয়তাপ-বিনির্গমনের দ্বার স্বরূপ। রোদনে শোকের উপশম বোধ হয়। চীৎকার ও তজ্জন গর্জনে ক্রোধ রিপুর শমতা বিধান করে। বন্ধু বান্ধবের নিকট হৃদয়-দ্বার উন্মুক্ত করিলে বিপ্রলন্তের অনেক লাঘব জ্ঞান হয়। বাস্তবিক ভাষাই ভাব-পূর্ণ হৃদয়ের বাহ্য প্রবাহ। ভাবের প্রকৃতি অনুসারে এই প্রবাহ কখন উচ্চ হইয়া স্ফীত হয়, কখন নীচগামী ও ধীরভাবে বহিতে থাকে। ভাষাও কখন উচ্চ হয় কখন নীচ হয়, কখন মৃদ্ধ কখন উগ্র, কখন দ্রুত কখন বীর, কখন কর্কশ কখন মধুর হইয়াথাকে। কোন সময় কি প্রকার হইবে কেবল প্রকৃতি তাহ নির্দেশ করিয়া দিতে পারে। কি প্রকার ধ্বনিতে কাহার সহিত কথা কহিতে হইবে কাহাকে বলিয়াদিতে হয় না । হৃদয়ভাব যে প্রকার থাকে, বাক্যের ধূনি তদনুযায়ী হইয়া থাকে। বাক্যের ধুনিতে হৃদয় ভাবের পরিচয় দেয়। বাগ্মী যখন বক্ততা করিতে থাকেন, তাহার কোন কথা গুলি কেবল মৌখিক ও অভ্যস্ত উপদেশ, এবং কোন গুলিই বা বাস্তবিক হৃদয় হইতে সমুদ্ভূত হইতেছে তাহা কাহাকে বলি দিতে হয় না। তাহা সহজে বাক্যের ধবনিতে ও নিঃসরণে প্রকাশিত হইয়া পড়ে। কারণ হৃদয়ের কথা হৃদয়ে গিয়া আঘাত করে আর কেবল মুখের কথা বাতাসে উড়িয়া যায়। যাহা হৃদয়ে আঘাত করে সে বাক্যের ধ্বনি ও বেগ যে প্রকার হইবে মৌখিক বাক্য মাত্রে তাহা কথনই বিদ্যমানদেখা যাইবে না। যে অভিনেতা হৃদয় বেদনায় কথা কহিতে পারেন তিনিই পরের হৃদয়ে সমবেদন উদ্বোধিত করিতে পরিবেন। অভিনেতার কার্ষ্যে অনেক গুলি নৈসর্গিক গুণের একাধারে সমাবেশ আব: শ্যক। এই সমস্ত স্বাভাবিক গুণে ভূষিত ন হইলে অভিনেতার কার্ষ্য সুচারুরূপে সম্পন্ন করা যায় না। আশ্চর্যের বিষয় এই যে স্বাভাবিক গুণে ভূষিত না থাকিলেও অনেকে তৎ সমুদায় শিক্ষা ও অভ্যাস দ্বারা অজ্জন করিতে যান। কিন্তু কত দূর কৃতকার্য হয়েন বলতে পারি না । প্রকৃতি ব্যতীত যাহা কিছু তেই প্রদান করিতে পারে না, তাছা | SSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSAAAA