প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৫৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


| প্রতীত হয় না। -*-m-or-treet চৈত্র ১২৮২ । . শরীর ও মন । ==. ¢ፃ » চেতন-স্বজপের আত্মস্বষ্টির শক্তি আছে একী অবশ্য স্বীকার করিতে হইবে। মনও চেতন পদাৰ্থ ; মনও তবে আত্মসন্তুত ও নিজে নিজের স্বষ্টিকর্তা না হইয়া অন্য চেতন পদার্থ দ্বারা স্বল্প হইবে কেন তাহা বুঝা যায় না। চেতন পদার্থের ধৰ্ম্ম যাহা তাহা সকল চেতন পদার্থে বিদ্যমান থাকিবে । ঈশ্বর কিরূপে আত্মসস্তুত, তাহা অতুভব করা যে প্রকার দুষ্কর, মন ও কেন ঈশ্বর কর্তৃক স্বল্প হইবে তাহাও অনুভব করা সেই প্রকার কঠিন। বাস্তবিক সূক্ষদশী ঈশ্বরবাদী এই দুই সমস্যার কিরূপে খণ্ডন করিয়াছেন আমাদিগের স্থল বুদ্ধিতে তাহ তৃতীয়ত: । ঈশ্বরবাদী বলেন, ঈশ্বর চেষ্টন স্বরূপ এবং জগতের স্মৃষ্টির কারণ । : তাহার.মত্ত্বে কেবল একমাত্র ঈশ্বরে রই পদার্থ জ্ঞান আছে। কারণ পদার্থ জ্ঞান fa থাকিলে তিনি কিছুরই সৃষ্টি করিতে পারিতেন না । ও ধৰ্ম্মাদি অবগত হইত্ত্বে পারে, কিন্তু কোনটা কি পদার্থ তাহ জানে না। মনুষ্যের যদি পদাৰ্থ জ্ঞান থাকিস্ত,-তিনিও স্বষ্টি করিতে সমর্থ হইতেন । র্তাহার পদার্থজ্ঞান না থাকাতে তিনি সৃষ্টি গুণविद्रश्ङि झईग्रांप्छन । भन्नुमा शनि छानिতেম জড় পদার্থ কি, তাহা হইলে তিনিও মনুষ্যে পদার্থে র গুণ $श्वा যদি জানিতেন যে, তাপ অথবা হয় তো একটি স্বৰ্য্য স্বষ্টি করিতে পারি- | তেন । এই পদাৰ্থ জ্ঞান না থাকাতে । মনুষ্য স্বষ্টি কৰুিতে পারেন না। এক্ষণে বিচাৰ্য এই যে যদি ঐশ্বরিক প্রকৃতি, ও মনের প্রকৃতি একবিধ হইল, তবে ইহুদিগের মধ্যে এপ্রকার মৌলিক বিভি হইবে – झड ¢कन नखादिउ श्झ । अनख् ८5डन স্বরূপের পদার্থজ্ঞান সম্পূর্ণ, সান্ত চেতনার পদার্থজ্ঞান না হয় অসম্পূর্ণ হউক। কিন্তু সান্ত চেতন-স্বরূপ মন কেন একেবারে পদার্থ জ্ঞান বিরহিত\ইৰে এ বিষয় আমরা বুঝিতে পারি না। অনন্ত চেতনস্বরূপের সহিত সান্ত চেতন পদার্থের যদি প্রকৃতিগত কিছু বৈলক্ষণ্য থাকে, তবেই এ প্রকার মৌলিক বিভিন্নতার তাৎপৰ্য্য থাকা সম্ভব। নহিলে অবশ্য বলিতে হইবে, সান্ত চেতনম্বরূপ মন যে প্রকার পদার্থ, জগৎ-স্বষ্টিকৰ্ত্ত ঈশ্বর সে প্রকার পদাৰ্থ নুহে। ঈশ্বৰ বাদী এ কথা বলিলে বরংAঠাচার কথার কিছু তাৎপৰ্য্য থাকে। নহিলে তিনি বলুন, জগৎ স্বষ্টিকর্তা যে কি পদার্থ তাহা আমি কিছুষ্ট জানি না। জগৎস্যষ্টিকৰ্ত্তাকে মনঃপদার্থের সদৃশ বলিতে গেলে, অসংখ্য তর্কের উৎপত্তি | অতএব অখিল জগৎ সৃষ্টিকর্তা ঈশ্বর যে মনকে স্বকীয়-প্রকৃতি-সম্পন্ন করিয়া । ‘স্বষ্টি করেন নাই, ইহা অবশ্য স্বীকার | জড় পদার্থ স্থষ্টি করিতে পারিতেন । করিতে হইবে। মনুষ্য বরং নিজ মনের শক্তি অনুসারে, জগংস্কৃষ্টি মধ্যে, কতিপয় আলোক কি পার্থতাহা হইলে তিনি গুণে উপলব্ধি করিয়া সেই গুণাবলি _