পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/৩৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


are, Yoo বুরহান শ’র দরগা ; :\O5)\G) প্রতিবৎসর মহরমের দিনে এই স্থানে এক বৃহৎ মেলা বসিয়া থাকে। মুসলমানগণের সেই পবিত্ৰ দিবস উপলক্ষে দরগার সম্মুখভাগে বহুসংখ্যক লোকের সমাগম হয়। হিন্দু, মুসলমান উভয়শ্রেণীর লোক এই স্থানটিকে বিশেষ পবিত্র বলিয়া মনে করে এবং ঐ দিবস পীর বুরহানের উদ্দেশে ভক্তিসহকারে বস্ত্ৰ, পয়সা, চাউল প্ৰভৃতি অর্পণ করে । পূৰ্ব্বে যে দীঘিকার কথা বলিয়াছি, সেই দীঘিকার তীরে দরগার সম্মুখে একটি বিশাল আমতরু, শীতল ছাথাদানে সৌর কিরণের প্রখরবেগ প্রশমিত করিতেছে। স্থানীয় মুসলমান সম্প্রদায় ইতাকেও বুরহান শা’র সমসাময়িক বলিয়া নির্দেশ করিয়া থাকেন। কিন্তু ইহা কতদূর সত্য, তাহা বলিতে পারি না। পুর্বে দীঘিকা হইতে দরগা পৰ্য্যস্ত সোপানাবলী বৰ্ত্তমান ছিল ; কিন্তু ভূমিকম্পে তাহা মৃত্তিকানিম্নে বসিয়া গিয়াছে। দরগার সন্নিকটেই বুরহানশা’র সমাধি দৃষ্ট হয়। সমাধির উপরিভাগে পাষাণের উপর একখানি ক্ষোদিতলিপি আছে। কোন বিজ্ঞ প্রত্নতত্ত্ববিদ এই শিলালিপির পাঠোদ্ধার করিয়া দিলে হয় তা বুরহান শা’র মৃত্যুর তারিখ অবগত হওয়া যাইতে is উপরে যে সকল ধ্বংসাবশেষের কথা বলা হইল, তাহা হইতে যশোহরের এই স্থানের প্রাচীনত্ব সুস্পষ্ট প্রতীয়মান হইবে। প। জাহান ও র্তাহার অনুচরবর্গের কীৰ্ত্তিকলাপের কোন ভাস্বর চিত্ৰ বৰ্ত্তমান নাই, বঙ্গদেশের স্থানে স্থানে তঁহাদের যে সকল কীৰ্ত্তিচিহ্ন নিপতিত রহিয়াছে, তাহ দর্শকের হৃদয়ে যথার্থই একটা অভূতপূর্ব বিস্ময়ের ভাব উদ্রিক্ত করাইয়া দেয়। যশোহরে বুরহান শা’র দরগার অধ্যাক্ষের নিকট শুনিয়াছিলাম. বহুদিন পূর্বে তাঁহাদের গৃহে বুরহান শা’র জীবনীসম্বলিত একখানি হস্তলিখিত পুথি সংরক্ষিত ছিল ; কিন্তু তাহা কিরূপে হারাইয়া যায়। যশোহরের অধিবাসিগণ র্তাহার জীবনকাহিনী ভুলিয়া গিয়াছে, আজ তাহার অধিকাংশ তত্ত্বই “নিহিতং ७छ्झॉ ।।” শ্ৰীননীগোপাল মজুমদার।