পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/৫১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আৰ্য্যাবৰ্ত্ত । ৪র্থ বর্ষ-১ম সংখ্যা । مراg\ বামাচরণ সব শুনিয়া শঙ্কা গণিল-বুঝি জাল ছিড়িয়া মাছ পলায়। যাহা হউক, সে ভাবিল, সে শৈলজাকে বুঝাইয়া রাধাচরণকে লইয়া যাইতে পরিবে। আপনার বুদ্ধিতে তাহার অতিরিক্ত বিশ্বাস ছিল। আর শৈলজার সহজ বুদ্ধি যে তাহার ক্ৰীৱ বুদ্ধিকে পরাজিত করিতে পারে, তাহা 6म ख्छादिgङ७ °iझिक्ष न्। । অপরাহ্নে অন্তঃপুরের দালানে শৈলজা, বিরাজা, পিসীমা ও বড় বধু বসিয়া ছিলেন । বামাচরণ রাধাচরণকে লইয়া তথায় আসিল। বড় বধু মাথার কাপড় টানিয়া দিলেন। বামাচরণ বলিল, “শৈল, তুই কি রাধাচরণকে বাটী থাকিতে বলিয়াছিস ?” শৈল কোলের ছেলেকে দুধ পান করাইতেছিল, মুখ তুলিয়া বলিল, *হঁ।” তাহার পর ছেলেকে আবার দুধ দিতে লাগিল । বামাচরণ বলিল, “পাৰ্ব্বতী আর দেবী ত বাড়ীতেই থাকিল।” শৈল মুখ না তুলিয়াই বলিল, “মেজদাদা যজমান দেখিবেন, দেবীর চাকরী আছে।” “কিন্তু বসিয়া থাকিলে কয় দিন চলিবে ?” “চলিবার ব্যবস্থা জ্যেঠা মহাশয় একরূপ করিয়া গিয়াছেন । তিনি যে টাকা রাধুকে দিয়া গিয়াছেন, সে টাকায় একটু সম্পত্তি কিনা। রাধু সংসার দেখুক-সম্পত্তি দেখুক । টাকা রাধুর নহে-তোমাদের চারি ভ্রাতার।” “আমি বলি, রাধাচরণ আমার সঙ্গে ব্যবসায় থাকুক। আমি এক সব পারিয়া উঠি না।” “রাধুৱ কি ব্যবসা বুঝিবার যোগ্যতা আছে ? আর ঐটুকু ব্যবসাতেই বা কি হইবে ?” “না-এই টাকাটা ফেলিলে ব্যবসাটাও বড় করা যায়।” শৈগ হাসিয়া বলিল, “তুমি এত বড় বুদ্ধিমান তুমি ব্যবসায়ে বড় লাভ করিতে পারিলে, তা রাধু লাভ করিবে ! আমি তা জানি, কলিকাতার বাসার খরচ পাই পয়সা হিসাব করিয়া জ্যেঠা মহাশয় পাঠাইতেন।” কথা কাটাকাটিতে বামাচরণ একটু রাগ করিতেছিল-বিশেষ সে শৈলজাকে যুক্তিতে পরাস্ত করিতে পারিতেছিল না, ইহাতে তাহার রাগ CBDDLD DDD DDBDDDS LG DBBDS S StD S DBB DB D BBS g বার বুঝিবে।”