পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৩০৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Հե Հ আৰ্য্যাবৰ্ত্ত । ৩য় ধর্ম-৪র্থ সংখ্যা । . * no . --— করিতে চাহি না ; পাশ্চাত্য বিজ্ঞান স্বাধীন ভাবে তথ্য-সংগ্ৰহ করিয়া যে সিদ্ধান্ত করিতেছেন,- কেবল তাহারই আলোচনা করিব । বৈজ্ঞানিকগণ জগৎকে দুই ভাগে বিভক্ত করিয়া থাকেন। (১) জড় জগৎ, (২) জীব জগৎ । জড় পরমাণু, দ্ব্যগুক ও ত্রস্রেণু প্ৰভৃতির সমবায়, বিবৰ্ত্তনে - এই বিশ্বের সমস্ত জড় পদার্থই উদ্ভূত হইয়াছে। পরমাণু নিত্য, উহার সৃষ্টিও নাই বিনাশও নাই। সৃষ্ট পদার্থের ধবংস হয় – অণু পরমাণুর ধ্বংস নাই । কিরূপে পরিদৃশ্যমান জড় পদার্থের উৎপত্তি ও লয় হয়, তাহ পদার্থবিজ্ঞান, রসায়নশাস্ত্ৰ প্ৰভৃতি জড় বিজ্ঞান বিশেষরূপে প্ৰদৰ্শিত করিয়াছেন । ইহা ভিন্ন জড়ের গতি ও চাঞ্চল্য ( motion ) আছে। কিন্তু জীব-জগৎ এখনও মানবের সমক্ষে বিষম প্ৰহেলিকারূপে দণ্ডায়মান । জড় ও জীব জগতের মধ্যে একটা বিরাট বৃতি রহিয়াছে। জীব-জগৎ দুই DDDDSD DDYS DBDDDSSSS DDDD S YBDi SLSSS g BYDS S BD DDD প্ৰাণীদিগের মধ্যে কতকগুলি সাধারণ ব্যাপার পরিলক্ষিত হইয়া থাকে । পাশ্চাত্য বৈজ্ঞানিকগণ সমস্ত জীবের মধ্যে একটা সাধারণ উপাদানের অস্তিত্ব লক্ষ্য করিয়াছেন । ইংরাজী ভাষায় উহাকে protoplasm বলে। আমরা বাঙ্গালায় উহাকে ‘জৈব উপাদান’ বলিব । উদ্ভিদে ও প্ৰাণীতে উহা বিদ্যমান আছে। জড় পদার্থে উহার অস্তিত্ব লক্ষিত হয় না। বৈজ্ঞানিকগণ জড় পদার্থদ্বারা উহা প্ৰস্তুত করিতে যথেষ্ট চেষ্টা করিয়াছেন,- কিন্তু তেঁাহাদের সেই চেষ্টা সফল করিয়া তুলিতে পারেন নাই। ইহা গাঢ় (শুষ্ক নহে) জিউলের অ্যাটার ন্যায় পদার্থ। ইহাতে আলবুমেনের মত পদাৰ্থ আছে। অঙ্গার ইহার একটি উপাদান। ইহা জীবের পুষ্টির ও প্রজনন-শক্তির কারণ। কেহ কেহ বলেন যে, ইহা হইতেই জীবের অনুভূত ও গতি-শক্তি উদ্ভূত হইয়৷ থাকে। দ্বিতীয়তঃ উদ্ভিদ ও প্রাণী এই উভয় জাতিরই পরিপাকশক্তি আছে। বাহির হইতে খাদ্য গ্ৰহণ করিয়া উহারা পরিপাকশক্তির সাহায্যে ভুক্ত বস্তুর সমস্ত বা কিয়দংশ আপনাদেব দৈহিক উপাদানে পরিণত করিয়া বৃদ্ধি প্ৰাপ্ত হয় । তৃতীয়তঃ ইহারা পারিপাশ্বিক অবস্থার সহিত অল্পাধিক পরিমাণে আপনাদের অবস্থার সামঞ্জস্য করিয়া লইতে সমর্থ। চতুর্থতঃ জীবিত অবস্থায় ইহাদের দেহ হইতেই বংশধর জন্মিবার বীজ উৎপন্ন হইয়া থাকে। ইহা ভিন্ন জীবমাত্রেরই অনুপলব্ধ স্মৃতি ( functional memory) atita | gors ife fi va fii și অবশ্যক। ইহার অর্থ এই যে, জীব-মাত্রেরই দৈহিক ধৰ্ম্ম অনুসারে যান্ত্রিক