পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৩০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Str8 আৰ্য্যাবৰ্ত্ত । ৩য় বর্ষ-৪র্থ সংখ্যা । এ স্থলে প্ৰসঙ্গতঃ আমি একটি কথা বলিব। প্ৰাচীন হিন্দুরা এই সমস্যার একটা সমাধান করিয়া গিয়াছেন। হিন্দুদিগের সিদ্ধান্ত এই যে, সমস্ত জীবের, এমন কি উদ্ভিদেরও, “আত্মা আছে। মনু স্পষ্টই বলিয়াছেন যে, সমস্ত উদ্ভিদ পদার্থ অতান্ত তমোগুণে সমাচ্ছন্ন থাকিলেও ইহাদের সুখ দুঃখু বোধ হইয়া efÇs qgR RRY ON TREFI ( internal consciousness ) Aft | * এই মত বৰ্ত্তমান বৈজ্ঞানিকদিগের সম্পূর্ণ অনুমতি নহে। কতকগুলি পাশ্চাত্য বৈজ্ঞানিক উদ্ভিদ৷ ত দুরের কথা, মেরুদণ্ডহীন জীবগুলিরও অন্তঃসংজ্ঞা ও সুখদুঃখ-বোধ আছে, ইহা স্বীকার করেন না। তঁাহারা বলেন যে, দেহে যে যে যন্ত্র থাকিলে সংজ্ঞার ( consciousness ) উদ্ভব হয়,ইহাদের সেই সেই যন্ত্র নাই ; অতএব উহারা সংজ্ঞাহীন। অধুনাতন শারীর বিজ্ঞানবিৎ পণ্ডিতগণ নানা পরীক্ষার দ্বারা সিদ্ধান্ত করিয়াছেন, মস্তিষ্কের স্থানবিশেষই ( cortex ) সংজ্ঞার উৎপত্তি-স্থান । আবার কেহ কেহ সিদ্ধান্ত করিয়াছেন, যে, স্নায়ুমণ্ডল কতকটা উন্নত হইলে জীবের সংজ্ঞার বা চেতনাবোধের উন্মেষ হয় । সুতরাং যাহার মাথা নাই তাহার যেমন মাথাব্যথা অসম্ভব, যে জীবের মস্তিষ্ক নাই ও স্নায়ুমণ্ডল আবশ্যক পরিণতিপ্রাপ্ত হয় নাই, তাহারও তেমনই সংজ্ঞা বা চেতনাবোধ অসম্ভব। আপাততঃ দৃষ্টিতে এই যুক্তি যথাৰ্থ বলিয়া মনে হইলেও একটু বিবেচনা করিয়া দেখিলে ইহা যথাৰ্থ বলিয়া মনে হইবে না। পরিবীক্ষণ ( observation ) দ্বারা জানা গিয়াছে, -জীব যতই উন্নত স্তরে আরূঢ় शझेष्ठ থাকে, ততই ক্রমশঃ তাহার দেহের বিবিধ যন্ত্র গঠিত হয় এবং দেহস্থ ‘জৈব উপাদান’ (protoplasm ) গুলিও । এক একটি বিশেষ যন্ত্রকে আশ্ৰয় করিয়া এক একটি বিশেষ কাৰ্য্য করিতে থাকে। উন্নত জীবদেহে এইরূপ জৈব উপদানের কাৰ্য্য বিভক্ত হইয়া যায়। কিন্তু নিম্ন স্তরের জীবের ঐরাপ বিভিন্ন যন্ত্র না থাকিলেও তাহার দেহের সমস্ত জৈব উপাদানগুলিকেই সকল কাৰ্য্য -التس -- incomprehensible, and imagination strive in vain to form some conce - tion of it.. Yet it is indisputable that living matter possesses this qui lity. Its existence is manifest throughout the whole animate world from the simple cell to the most complex organism,-Alfred Hook.

  • उभन। लश्g11 ८लहैिठा: कईc३gभ।

VATS: R 93 y 4, KI N’A Re: B ଜ୍ଞା :୫୪,