পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/১৩৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ম্যালেরিয়া ।* ম্যালেরিয়া নামক জনপদবিধ্বংসী ব্যাধির প্রভাবে আজ সমগ্ৰ বঙ্গদেশ, কেবল বঙ্গদেশ কেন প্ৰায় সমগ্ৰ ভারত-অমানিশার ঘোর অন্ধকারে আবৃত হইয়া পড়িয়াছে। যে দেশ সর্বদাই সুকুমার শিশুর হস্তকৌমুদীতে, সদানন্দ চিত্ত যুবকযুবতীর প্ৰেমালাপে, প্রৌঢ়প্ৰৌঢ়ার প্রতিসম্ভাষণে, স্থবিরস্থবিরার ধৰ্ম্মলাপে মুখরিত থাকিত; যে দেশে সন্ধ্যার পর প্রতিগ্রামে আরাত্রিকের ঘণ্টাধ্বনি, ও নিশীথ পৰ্যন্ত সঙ্গীতধ্বনি উখিত হইত। আজ সেই দেশ। এই লোকসংহারী ব্যাধির প্রভাবে নীরব, নিথর ও স্তম্ভিত ভােব ধারণ করিয়াছে। যে বাঙ্গালা এক সময় “কুসুমদামসজিত দীপাবলি তেজে উজ্জ্বলিত নাট্যশালা সমা” ছিল, আজ সেই দেশে এই দুরন্ত রোগের প্রভাবে “একে একে শুকায়েছে ফুল এবে, নিবেছে দেউটী, নীরব রবাব, বীণা, মুরজ, মুরলী।” সৰ্ব্বত্রই যেন প্ৰলয়কালীন ভীষণ অন্ধকার জলস্থল আবৃত করিয়া রহিয়াছে, কেবল শ্মশান-সৈকতে চিন্তানলের উৎকট আলোকরশ্মি সেই দিগন্ত-বিসারী অন্ধকারের সমতা ভঙ্গ করিয়া উহার ভীষণত বৃদ্ধি করিতেছে । প্ৰতিবর্ষে বাঙ্গালায় জর রোগে সতের আঠার লক্ষ লোক কালান্তকের কবলে নিপতিত হইতেছে; এই খণ্ডিত বঙ্গের পশ্চিমাদ্ধেই প্ৰতিবর্ষে প্ৰায় বার লক্ষ করিয়া । লোক শমনসদনে নীত হইতেছে। এই খণ্ডিত বঙ্গের পশ্চিমাদ্ধে ১৯০৬ খৃষ্টাব্দে ১১ লক্ষ ৩২ হাজার ৫ শত ৭৯ জন, ১৯০৭ খৃষ্টাব্দে ১১ লক্ষ ৭১ হাজার ৫ শত ৪০ জন এবং ১৯০৮ খৃষ্টাব্দে ১১ লক্ষ ৮৪ হাজার ৭ শত ৪ জন লোক কেবলমাত্র জীৱরোগেই প্ৰাণ হারাইয়াছে । ইহা ভিন্ন কত লোক প্ৰতিবর্ষে এই রোগে আক্রান্ত হয়, তাহার ইয়ত্ত করা কঠিন। অনুমান হয়, এই অষ্ট কোটী আধিবাসীঅধুসিত বঙ্গে অন্ততঃ পঁাচ কোটী লোক এই দুরন্ত রোগে আক্রান্ত হইয়া থাকে। যাহারা এই রোগ কর্তৃক আক্রান্ত হয়, তাহদের জীবনী-শক্তি অত্যন্ত ক্ষীণ হইয়া পড়ে। তখন অন্যান্য নানা ব্যাধি সহজে তাহাদিগকে আক্রমণ করিতে সমর্থ হয়। সুতরাং জ্বর।রোগে প্ৰতিবর্ষে মুখ্যতঃ এগার বার লক্ষ লোক মরে সত্য, কিন্তু গৌণতঃ এই রোগ যে আরও অনেক অধিক লোকের মৃত্যুর কারণ এ কথা

  • ম্যালেরিয়া-শ্ৰীশৌরীন্দ্রমোহন গুপ্ত, এল, এম, এস, প্রণীত ; শ্ৰীকিরণচন্দ্র রায় কর্তৃক প্ৰকাশিত, মুঙ্গের । মূল্য ১২ টাকা ।