পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/২৪৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२२७ আৰ্য্যাবর্ত । ১ম বর্ষ-৪র্থ সংখ্যা বিশুদ্ধ জলের অভাব । আমাদের বাঙ্গালাদেশে বিশুদ্ধ জলের অভাবে দিন দিন বাড়িতেছে। এই জলাভাব দ্বিবিধ কারণে ঘটিতেছে। প্ৰথম মানবের অনবধানতা, দ্বিতীয় নৈসৰ্গিক 하여 1 মানবের অনবধানতা বাঙ্গালা দেশে জলাভাবের এক প্রধান কারণ। বাঙ্গালায় দীর্ঘিকাসমূহের ইতিহাস এখনও লিখিত হয় নাই। পালবংশীয় রাজাদিগের দীর্ঘকার পর, অত প্ৰকাণ্ড দীর্ঘিকা, বোধ হয়, এ প্রদেশে আর খনিত হয় নাই। পরবর্তী কালের দীর্ষিকাগুলির মধ্যে ত্রিপুরার মহারাজদিগের দীঘি,বিষ্ণুপুরের রাজাদিগের দীঘি, সীতারাম রায়ের দীঘি প্রধান। তাহার পর কৃষ্ণচন্দ্রের দীঘনগরের দীঘি প্ৰসিদ্ধি লাভ করিয়াছিল। আধুনিক কালের মধ্যে মহতাপচন্দ্রের দ্বারা সংস্কৃত বৰ্দ্ধমানের বিশাল সরোবরগুলির পর আর সেরূপ কোন দীঘি বাঙ্গালাদেশে হইয়াছে বলিয়া আমরা অবগত নাহি। ঐ গুলি ব্যতীত বাঙ্গালার প্রায় সর্বত্রই বড় বড় পুষ্করিণীর অন্তিম দশা দৰ্শন করা যায়। কোন কোন প্রাচীন পুষ্করিণীর গর্ভে কৃষিকাৰ্য্য আরব্ধ হইয়াছে। কোন কোনটিতে গ্রীষ্মকালে দেড়হন্তের অধিক জল থাকে না । মানবের অনবন্ধনত এই সকল পুষ্করিণীর ধ্বংসের কারণ। মধ্যে মধ্যে পুষ্করিণীসমূহের আমূল সংস্কার আবশ্যক; নহলে সেগুলি বুজাইয়া দেওয়া উচিত। পুষ্করিণী নিম্ন স্থান ; চারিপার্শ্ব হইতে বৃষ্টির জল জমি ধুইয়া উহাতে আসিয়া সঞ্চিত হয়। এই বৃষ্টির জল বিশুদ্ধ অবস্থায় পুষ্করিণীতে পৌছিতে পারে না। উহা মৃত্তিকা ধুইয়া, মৃত্তিকাসংলগ্ন লবণাক্ত পদার্থ এবং জমির উপরিদেশে অবস্থিত জৈব ও উদ্ভিজ্জ পদার্থ লইয়া পুষ্করিণীতে উপনীত হয়। তদ্ব্যতীত জানার্থী জনগণের গাত্রনিঃস্থত মল, রাজকের ধৌত বস্ত্রের মিল, বায়ু ও পক্ষী প্রভৃতি জীবের দ্বারা আনীত বিবিধ উদ্ভিদের বা জীবের বীজ বা দেহাবশেষ ইত্যাদি • দূষিত পদার্থও পুষ্করিণীতে দিন দিন অল্পাধিক পরিমাণে সঞ্চিত হইয়া ক্ৰমে ক্ৰমে উহার জলের বিশুদ্ধি বিনাশ করে। এইরূপ জল ক্ৰমে ক্ৰমে, বিবিধ পচন ক্রিয়া ও রোগের উৎপাদক আণুবীক্ষণিক উদ্ভিদসমূহের আবাস ভূমির উপযুক্ত হয় ; এবং কালক্রমে উহা এমন অবস্থায় উপনীত হইতে পারে যে, উহার জল বা উহার অবস্থান, নিকটস্থ নগরের বা গ্রামের স্বাস্থ্যহানির প্রধান কারণ হইয়া উঠে। তবে প্ৰকৃতির ভাণ্ডারে পুষ্করিণীর জলের বিশুদ্ধি রক্ষা করিবারও কতকগুলি