পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৪৭৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


gQやり মাৰ্য্যাবৰ্ত্ত। Yn 36-42), Mrkoi:: शेछiशुठ्ठा । তখনও উষার আলোক ফুটিয়া উঠে নাই-বিহগ-কুজনবিরহিত। রোগিনীর পাংশু মুখে মৃত্যুর ছায়া ঘনাইয়া আসিতেছে। শয্যাপার্শ্বে বর্ষীয়ান পিতা সমস্ত রজনী অনিদ্রায় অতিবাহিত করিয়া অশ্র-বিসর্জন করিতেছেন। কাতর কণ্ঠে কন্যা ডাকিল“বাবা” ; “কি মা” বলিয়া পিতা মূমুর্ষু কন্যার ললাট স্পর্শ করিলেন। কন্যা যেন বিকার-ঘোরে বলিল-“একবার সুরেশ-” ; আর বাক্যস্ফুৰ্ত্তি হইল না। মৃত্যু শেষ নিশ্বাস অপহরণ করিয়া চলিয়া গেল। মত্ত বায়ু যেমন প্রবল ঝটিকার সময় পক্ষি-শাবককে মাতার পক্ষচ্যুত করিয়া কোন অজানিত স্থানে লইয়া যায় ; নিষ্ঠুর মৃত্যু তেমনই বৃদ্ধ সাতকড়ি বন্দোপাধ্যাৱে হৃদয়পঞ্জীর ভগ্ন করিয়া তাহার বড় আদরে-বড় সোহাগের কন্যা শান্তশীলার প্রাণবায়ু লইয়া श्रणांब्रन कझिंग । शंक्ष, भांनद औदन ! কৈশোরে মাতৃহীনা, পিতৃস্নেহে পালিতা, শিশিরসিক্ত শেফালি পুষ্পের ন্যায় স্নিগ্ধ শান্তশীল যখন দশ দিনের শিশু তখন এমনই এক অশুভ মুহুর্তে তাহার জননী সীমান্তে উজ্জল সিন্দুৱা-শোভা লইয়া লোকান্তরে প্রস্থান করিয়াছিলেন। সে আজ সপ্তদশ বর্ষ পূর্বের কথা। ঐ যে নিম্পন্দ জড় দেহ-ঐ যে অৰ্দ্ধোম্মিলিত cशांडिशैन, पूटिशेन 5यू, पांशन अडि श्नान औद्र अखिद्ध अश्डद कब्रिघा সাতকড়ি বাবু হৃদয়ে বল পাইতেন, দুখকষ্ট তুচ্ছ করিয়া জীবনে সার্থকতা আছে মনে করিতেন-উহারা আজ র্তাহার নিকট বিশ্ব-সংসারের একটি বিরাট শূন্যতার আবরণ উন্মোচিত করিয়া যেন সপ্তদশ বর্ষের নিস্ফল ব্ৰত উদযাপন করাইল। দশ দিনের শিশু কন্যা বুকে করিয়া সাতকড়ি স্ত্রীর শোক ভুলিয়াছিলেন ;-আজি তাহার শোক সংবরণ করিবার কিছুই নাই। শান্তশীলার সঙ্গে সঙ্গে তিনি স্ত্রীর 'थङिविश्व হারাইলেন । EDDS DBDBBDS BBDBD KYYBS DDD D DBB DD BDBK বিলুপ্ত করিয়া দেয়, তখন তাহার গভীরতা যত বৃদ্ধি পায় স্মৃতি তত প্ৰবল হইয়া উঠে। কেমন করিয়া দশ দিনের শিশু “মানুষ” করিয়াছিলেন, স্তন্যদায়িনী DDB BDBDB BDDDB DBDD DDiDSBB DD BDD DBDDB BDB