পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (তৃতীয় বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


() ঐতিহাসিক চিত্ৰ । চাদরায়ের কন্যা স্বর্ণময়ীকে হরণ করিয়া ঠাহাকে বলপূর্বক বিবাহ করায় ইশা খার প্রতি ঠাহাদের ক্ৰোধ দাবানলসম প্ৰজ্বলিত হইয়া উঠে । স্বর্ণময়ীহরণের পর রোষে ক্ষোভে চাদরায় ইহ জগৎ হইতে বিদায় গ্ৰহণ করিলেন বটে, কিন্তু কেদার রায় তাহার প্রতিশোধ লইবার জন্য বদ্ধপরিকর হইলেন। এই সময়ে বঙ্গোপসাগরে অনেকগুলি পটুগীজ বা ফিরিঙ্গী জলদসু্য বাস করিত। পটু গজগণ প্রথমতঃ বাণিজ্যোপলক্ষে বঙ্গদেশে সমাগত হয়। পরে তাহার। দেশীয় রাজাগণের অধীনে সৈনিক বৃত্তি অবলম্বন করিয়া জীবন যাত্রা নিৰ্বাহ করিতে থাকে। ক্ৰমে তাহা হইতে তাহারা দ মাতা অবলম্বন করিয়া বঙ্গোপসাগরকে আন্দোলিত করিয়া তুলে। ফিরিঙ্গীগণের মধ্যে কেহ কেহ দসু্যতা অবলম্বন করিলে ৭ তখন ও পৰ্য্যন্ত তাহদের মধ্যে দুই এক জন প্ৰকৃত সেনানী দেশীয় রাজগণের অধীনে নিযুক্ত ছিলেন। কেদার রায় স্থল যুদ্ধ ও জল যুদ্ধ উভয়েরই দ্বারা আপনার পরা ক্রম প্রদর্শনের ইচ্ছা করেন । বিশেযত: পূর্ণ বঙ্গ বহু নদ নদীসঙ্গুল ও সমুদ্র প্রক্ষালিত হওয়ায় জলযুদ্ধেরই বিশেষ রূপ প্রয়োজন খৃষ্ট গ্য । তিনি ক্ৰমে ক্ৰমে অনেকগুলি রণতরী নিৰ্ম্মাণ ও সংগ্ৰন্থ করিয়া পটুগীজদিগকে দমন করিতে প্ৰবৃত্ত হইলেন। তাহাদিগকে দমন করার তাহার দুইটি উদ্দেশ্য ছিল। প্রথমতঃ তাহাদের ক্ষমতা সঙ্কোচ করা, দ্বিতীয়তঃ তাহাদিগকে '&াহর পক্ষ ভুক্তি করা । কারণ তিনি জানিতেন যে, ফিরিঙ্গীরা জলযুদ্ধে অত্যন্ত পারদর্শী এবং কামান ও বন্দুক পরিচালনায় অদ্বিতীয় ছিল। কেদার রায়ের অধিরাম আক্রমণে ব্যাকুল হইয়া অবশেষে তাহাকেই তাহারা আপনাদের 'প চুঁ স্বীকার করিতে বাধা হয় । কেদার রায় সেই সমস্ত ফিরিঙ্গীদিগকে আপনার রণতরী ও কামান বন্দুক পরিচালনের জন্য নিযুক্ত করিলেন । ক্যাভেলিয়াস বা কার্ভালো নামে একজন সুচতুর সাহসী পটুগীজ বীরপুরুষ তাহার সৈন্যাপিত গ্ৰহণ করিলেন । এই কার্ভালোর অদ্ভুত বীরত্ব DDDDDDD DDBDBBD BeBB BDBDB BDBBDDL S আমরা পূৰ্ব্বে উল্লেখ করিয়াছি যে, এই সময়ে মোগল সেনাপতিগণ পুৰ্ব্ব বঙ্গ অধিকারের জন্য চেষ্টা করিতেছিলেন । কেদার রায় প্রথমতঃ ইশা খার