পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করিম সেখ òd বলিয়া তাড়াতাড়ি বাহির হইয়া দেখে, বসিরের স্ত্রী ভয়ে বিহুঘল হইয়া বসিয়া আছে; উঠানে করিমের চেতনাশূন্য দেহ বিলুষ্ঠিত হইতেছে। বৃদ্ধ তখন বারান্দা হইতে নামিয়া তাড়াতাড়ি করিমের নিকটে গিয়া দেখিল করিমের সংজ্ঞা নাই। “বীে, শীগগির জল আন” বলিয়া বৃদ্ধ করিমের মস্তক কোলে তুলিয়া বসিল এবং নিজের অঞ্চলদ্বারা তাহাকে ব্যজন করিতে লাগিল। বসিরের স্ত্রী জল আনিয়া করিমের মুখে মাথায় দিতে লাগিল । একটু পরেই করিমের কৃত্রিম মূছ৷ ভাঙ্গিল ; সে চাহিয়া দেখে বসিরের মাতা তাহাকে ক্রোড়ে লইয়া বসিয়া আছে, এবং বসিরের স্ত্রী নিকটেই দাড়াইয়া । করিমের জ্ঞানসঞ্চার হইয়াছে দেখিয়া বসিরের মাতা বলিল, “করিম, কি হয়েছে বাপ ? আমার বসির কৈ ? সে ভাল আছে তা ?” করিম সে কথার কোন উত্তর না দিয়া, “হা, আল্লা কি করিলে ?” বলিয়া পুনরায় চক্ষু মুদ্রিত করিল। তখন বসিরের নিশ্চয়ই কোন ভয়ানক বিপদ হইয়াছে মনে করিয়া তাহার মাতা •চীৎকার করিয়া কাঁদিয়া উঠিল, বসিরের স্ত্রীও কঁদিতে লাগিল । তাহদের কান্নার শব্দ শুনিয়া প্ৰতিবে । পুরুষ স্ত্রী বালক বালিকা সকলেই দৌড়িয়া আসিল। প্রাঙ্গণ লোকে পূর্ণ হইয়া গেল। সকলেরই মুখে এক কথা, “কি । হইয়াছে ? ব্যাপার কি ?” কিন্তু কে উত্তর দিবে ? করিম তখনও চক্ষু মুদ্রিত করিয়া পড়িয়া আছে । তিন চারিজন পুরুষ তখন ধরাধরি করিয়া করিমকে