পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


No করিম সেখ বারান্দায় তুলিল, এবং তাহার জ্ঞানসঞ্চারের জন্য চেষ্টা করিতে লাগিল। সংবাদ পাইয়া করিমের মাতা, ভগিনী ও ভাইয়েরাও উপস্থিত হইল ; করিমের পিতা মাঠে গিয়াছিল, সে একথা জানিতে পারিল না । করিমের মূচ্ছি। আর ভাঙ্গে না। যে ভাণ করে, তাহাকে জাগাইয়া তোলা বড় সহজ ব্যাপার নহে। অনেক জল ঢালিয়া, বহুক্ষণ বাতাস করিয়া অবশেষে সকলে করিমকে প্ৰকৃতিস্থ করিল। তখন সে কাদিতে কাঁদিতে বলিল, “সৰ্ব্বনাশ হইয়াছে। বসির ভাই আজ তিন দিন হইল ওলাউঠায় মারা গিয়াছে। আমি কত চেষ্টা করিলাম, কত যত্ন করিলাম, কিছুতেই কিছু হইল না । আর সেখানে সেই জঙ্গলের মধ্যে “দাওয়াই” কোথায় পাইব । বসির ভাইকে কোলে করিয়া কেবল আল্লাকে ডাকিতে লাগিলাম। সন্ধ্যার পরই বসির ভাই মারা গেল! হায় হায়, আমি তার কিছুই করিতে পারিলাম না !” করিম আর কথা বলিতে পারিল না, তাহার কণ্ঠস্বর রুদ্ধ হইয়া গেল ! তখন চারিদিকে ক্ৰন্দনের রোল উঠিল। বসিরের মাতার করুণ ক্ৰন্দনে কেহই অশ্রী সংবরণ করিতে পারিল না। করিম মাথায় হাত দিয়া অধোমুখে ক্ৰন্দন করিতে লাগিল। প্ৰতিবেশিনীরা বসিরের মাতাকে সাস্তুনা দিবার বৃথা চেষ্টা করিতে লাগিল। বসিরই পরিবারের একমাত্র অবলম্বন ; সেই অবলম্বনশূন্য হইয়া বসিরের মাতা চারিদিক অন্ধকার দেখিতে লাগিল । বসিরের স্ত্রী এতক্ষণ নীরবে ক্ৰন্দন করিতেছিল। ক্রমে ভাহার ক্ৰন্দনের বেগ কিমিয়া গেল। সে ২ এক দৃষ্টিতে করিমের