পাতা:কাব্যগ্রন্থ (অষ্টম খণ্ড).pdf/১৯৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শারদোৎসব দুঃখের আনন্দ এবং সৌন্দর্য্য যে কি সে কথা তোমার কাছে পূর্বেই শুনেচি। প্রভু, কেবল এই দুঃখের জোরেই পাওয়ার সঙ্গে দেওয়ার ওজন বেশ সমান থেকে যাচ্চে, মিলনটি এমন সুন্দর হয়ে উঠেচে । সন্ন্যাসী ঠাকুর্দা, যেখানে আলস্য, যেখানে কৃপণতা, যেখানেই ঋণ শোধে ঢিল পড়ে যাচ্চে সেইখানেই সমস্ত কুত্ৰ, সমস্তই অব্যবস্থ । ঠাকুরদাদা সেইখানেই যে একপক্ষে কম পড়ে যায়, অন্য পক্ষের সঙ্গে মিলন পূরো হতে পায় না। সন্ন্যাসী লক্ষী যখন মানবের মর্ত্যলোকে আসেন তখন দুঃখিনী হয়েই আসেন ; তার সেই সাধনার তপস্বিনীবেশেই ভগবান মুগ্ধ হয়ে আছেন ; শত দুঃখেরই দলে তার সোনার পদ্ম ংসারে ফুটে উঠেচে, সে খবরটি আজ ঐ উপনন্দের কাছ থেকে পেয়েচি ! ( লক্ষেশ্বরের প্রবেশ ) লক্ষেশ্বর তোমরা চুপি চুপি দুটিতে কি পরামর্শ করচ ? সন্ন্যাসী আমাদের সেই সোনার পদ্মের পরামর্শ। & > a と