পাতা:কাব্যগ্রন্থ (নবম খণ্ড).pdf/৪৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাজা মধ্যেই সমস্ত জীবনটা কাটিয়ে দিলে, একদিনের জন্যে তা’র বাইরে পা ফেলেনি। মৃত্যুর পর কথা উঠ ল ঐ উনপঞ্চাশ হাতের মধ্যেই ত দহ করতে হয় ; সে এক বিষম মুস্কিল ; শেষকালে শাস্ত্রা বিধান দিলে যে উনপঞ্চাশে যে তেটো অঙ্ক আছে তা’র বাইরে যাবার জো নেই, অতএব ঐ চার নয় উনপঞ্চাশকে উন্টে নিয়ে নয় চার চুরানব্বই করে দাও ; তবেই ত তাকে বাড়ির বাইরে পোড়াতে পারি, নইলে ঘরেই দাহ করতে ত’ত । বাবা, এত আঁটাতাটি! এ কি যে-সে দেশ পেয়েছ । ভবদন্ত । বটেই ত, মরতে গেলে ও ভাবতে হবে, এ কি কম কথা ! কোণ্ডিল । সেই দেশের মাটিতে শরীর, তবু জনাৰ্দ্দন বলে কি না, খোলা রাস্তাই ভালে। ! ( প্রস্থান ) ( বালকগণকে লইয়া ঠাকুর্দার প্রবেশ ) ঠাকুদা । ওরে দক্ষিণে হাওয়ার সঙ্গে সমান পাল্লা দিতে হবে, হার মানলে চলবে না। আজ সব রাস্তাই গানে ভাসিয়ে দিয়ে চলব। ২৩