পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/৪২৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


হোরিখেলা বামহস্তে গুলাব ভরা ঝারী সারি সারি রাজপুতানী আসে । পায়ে পায়ে ঘাগর উঠে দুলে, ওড়না ওড়ে দক্ষিণে বাতাসে । আঁখির ঠারে চতুর হাসি হেসে— কেসর তবে কহে কাছে আসি,— বেঁচে এলেম অনেক যুদ্ধ করি’— আজকে বুঝি জানে-প্রাণে মরি – শুনে রাজার শতেক সহচরী হঠাৎ সবে উঠল আট হাসি । রাঙা পাগড়ি হেলিয়ে কেসর থা রঙ্গভরে সেলাম করে আসি । সুরু হ’ল হোরির মাতামাতি, উড়তেছে ফাগ রাঙা সন্ধ্যাকাশে । নব-বরণ ধরল বকুল ফুলে, রক্তরেণু ঝরল তরুমূলে, ভয়ে পাখী কুজন গেল ভুলে রাজপুতানীর উচ্চ উপহাসে। কোথা হ’তে রাঙা কুজঝটিকা লাগল যেন রাঙা সন্ধ্যাকাশে । 8> ○