পাতা:কাব্যগ্রন্থ (ষষ্ঠ খণ্ড).pdf/২২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তাই এত দিন পরে আজি নিজমূৰ্ত্তি ধরে প্রবাসের বিরহ-বেদনা, তোদের কাছেতে যেতে তোদেরে নিকটে পেতে জাগিতেছে একান্ত বাসনা । সম্মুখে দাড়াব যবে “কি এনেছ” বলি সবে যদ্যপি শুধাস হাসিমুখ, খাতাখানি বের করে” বলিব “এ পাতা ভরে* আনিয়াছি প্রবাসের সুখ ।” সেই ছবি মনে আসে টেবিলের চারিপাশে গুটিকত চৌকি টেনে আনি, শুধু জন তই তিন উদ্ধে জ্বলে কেরোসিন, কেদারায় বসি ঠাকুরাণী । দক্ষিণের দ্বার দিয়ে, বায়ু আসে গান নিয়ে, কেঁপে কেঁপে উঠে দীপশিখা, খাতা ছাতে সুর করে” অবাধে যেতেছি পড়ে’ কেহ নাই করিবারে টীকা ! ঘণ্টা বাজে, বাড়ে রাত, ফুরায় ব’য়ের পাত হিরে নিস্তব্ধ চারিধার ; তোদের নয়নে জল করে আসে ছলছল শুনিয়া কাহিনী করুণার । তাই দেখে শুতে যাই, আনন্দের শেষ নাই, কাটে রাত্রি স্বপ্ন রচনায়, মনে মনে প্রাণ ভরি’ অমরতা লাভকরি নীরব সে সমালোচনায় ।