পাতা:কাহিনী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১০৫

এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
১০২
কাহিনী


ক্ষীরো


অন্যের বউ পরলে গয়না
অন্যের তাতে জ্বলে যে অঙ্গ।

তৃতীয়া


মাসি, জান তুমি কতই রঙ্গ-
এত ঠাট্টাও আছে তাের পেটে
হাসতে হাসতে নাড়ী যায় ফেটে।

প্রথমা


কিন্তু, যা বলো, আমাদের মাতা
নাই তাঁর মতাে এত বড়ো দাতা।

ক্ষীরো


অর্থাৎ কিনা, এত বড় হাবা
জন্ম দেয় নি আর কারাে বাবা।

তৃতীয়া


সে কথা মিথ্যে নয় নিতান্ত।
দেখ্‌-না সেদিন কুশী ও ক্ষান্ত
কী ঠকান্‌টাই ঠকালে মা গাে!
আহা মাসি, তুমি সাধে কি রাগো!
আমাদেরই গায়ে হয় অসহ্য।

চতুর্থী


বুড়াে মহারাজা যে ঐশ্বর্য
রেখে গেছে সে কি এমনি ভাবে
পাঁচ ভূতে শুধু ঠকিয়ে খাবে!