পাতা:ক্লিওপেট্রা (নবীনচন্দ্র সেন).pdf/২৮

এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।

( ২০ )

ওই যে দেখিছ চিত্র,—নিসর্গ-দৰ্পণ!—
অপূৰ্ব্ব অঙ্কিত! ওই দেখ ওই,
‘চিদনস’-স্রোতে ওই প্রমোদ-তরণী, [১]
ভাসিতেছে, নাচিতেছে, বারিবিহারিণী।
হাসিতেছে, জ্বলিতেছে পশ্চিম-তপনে,
প্রতিবিম্বে ঝলসিয়া তরল সলিল।
ময়ূর ময়ূরী প্রেমে মুখে মুখ দিয়া,
বঙ্কিম গ্রীবায় ভাসে তরী-পুরোভাগে;
চন্দ্রক কলাপরাশি—নয়ন-রঞ্জন!—
চারু চন্দ্ৰাতপ রূপে শোভিছে পশ্চাতে।
তাহার ছায়ায় বসি কর্ণিকা রূপসী;
নাচে স্বর্ণ বর্ণ, বদ্ধ কুসুম-মালায়
কুসুম কোমল করে। বসন্ত রঙ্গের
নাচিতেছে সুবাসিত সুন্দর কেতন,
সৌরভে-মোহিত-মৃদু অনিল-চুম্বনে।
তরণীর মধ্যদেশে, সুবর্ণ-খচিত
চন্দ্রাতপ-তলে, স্বর্ণ-কমল আসনে,
বারুণী-রূপিণী, ওই তরণী-ঈশ্বরী;—


  1. চিদনস নামক নদ—এসিয়া-মাইনরে, এন্টনির আজ্ঞা মতে ক্লিওপেট্রা তাঁহার সঙ্গে ‘টারসাসে’ এই রূপ এক তরণী আরোহণ করিয়া সাক্ষাৎ করিতে যাইতেছিলেন।