প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/১২৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


げぬbf গল্পগুচ্ছ দজেনের সম্মিলিত রচনা। আপনি অবজ্ঞা করে বলবেন বাঙালি মেয়েরা অগোছালো । একটা সময় দিন, কাল দেখলে মনে হবে শেবতন্বীপের বেতভুজার অপব কাঁতি, মেমসাহেবী সন্টি।” অধ্যাপক কিছল কুণ্ঠিত হয়ে আমাকে বললেন, “আপনি কিছ মনে করবেন না-দিদি বড়ো বেশি কথা কচ্ছে। কিন্তু ওটা ওর স্বভাব নয় মোটে। এখানে অত্যন্ত নিজন, তাই ও আমার মনের ফাঁক ভরে রেখে দেয় কথা কয়ে। সেটা ওর অভ্যেস হয়ে যাচ্ছে। ও যখন চুপ করে থাকে ঘরটা ছমছম করতে থাকে, আমার মনটাও । ও নিজে জানে না সে কথা। আমার ভয় হয় পাছে বাইরের লোকে ওকে ভুল বোঝে।" বড়োর গলা জড়িয়ে ধরে অচিরা বললে, “বাঝক-না দাদা ! অত্যন্ত অনিন্দনীয়া হতে চাই নে, সেটা অত্যন্ত আনইন্টারেস্টিঙ।” অধ্যাপক সগবে বলে উঠলেন, “আমার দিদি কিন্তু কথা বলতে জানে, অমন আর কাউকে দেখি নি।" “তুমিও আমার মতো কাউকে দেখ নি, আমিও কাউকে দেখি নি তোমার মতো।” আমি বললাম, “আচাৰ্যদেব, আজ বিদায় নেবার পবে আমাকে একটা কথা দিতে হবে।” “আচ্ছা বেশ ।” “আপনি যতবার আমাকে আপনি বলেন, আমি মনে-মনে ততবার জিভ কাটি । আমাকে দয়া করে তুমি বলে যদি ডাকেন তা হলে মন সহজে সাড়া দেবে। আপনার নাতনিও সহকারিতা করবেন।" অচিরা দই হাত নেড়ে বললে, “অসম্ভব, আরও কিছুদিন যাক। সব দা দেখাশানো হতে হতে বড়োলোকের তিলকলাঞ্ছন যখন ঘষা পয়সার মতো পালিশ করা হয়ে যাবে তখন সবই সম্ভব হবে। দাদর কথা স্বতন্ত্র। আমি বরণ ওঁকে পড়িয়ে নিই। বলো তো দাদা, "তুমি কাল খেতে এসো। দিদি যদি মাছের ঝোলে নন দিতে ভোলে, মুখ না বেকিয়ে বোলো, কণী চমৎকার। বোলো, সবটা আমারই পাতে দেওয়া ভালো, অন্যরা এরকম রান্না তো প্রায়ই ভোগ করে থাকেন । " অধ্যাপক সস্নেহে আমার কাঁধে হাত দিয়ে বললেন, “ভাই, তুমি বুঝতে পারবে না আসলে এই মেয়েটি লাজকে, তাই যখন আলাপ করা কতব্য মনে করে তখন সংকোচ ঠেলে উঠতে গিয়ে কথা বেশি হয়ে পড়ে।” “দেখেছেন ডক্টর সেনগুপ্ত ? দাদ আমাকে কী রকম মধর করে শাসন করেন। অনায়াসে বলতে পারতেন, তুমি বড়ো মুখরা, তোমার বকুনি অসহ্য। আপনি কিন্তু আমাকে ডিফেন্ড করবেন। কী বলবেন বলনে তো।” “আপনার মুখের সামনে বলব না।” “বেশি কঠোর হবে ?” “আপনি মনে-মনেই জানেন।” “থাক, থাক, তা হলে বলে কাজ নেই। এখন বাড়ি যান।" আমি বললাম, “তার আগে সব কথাটা শেষ করে নিই। কাল আপনাদের ওখানে আমার নেমন্তস্নটা নামকতন-অনুষ্ঠানের । কাল থেকে নবীনমাধব নামটা থেকে কাটা