প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/২৩১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Soos গল্পগুচ্ছ আমি ভাবলাম এই তো আমি কোনো উপকরণ না নিয়ে কেবল গল্প লিখে... নিজেকে নিজে সাখী করতে পারি। শিলাইদা, ২৭ জন ১৮৯৪ — রবীন্দ্রনাথ। ছিন্নপত্র ছোটো গল্প রচনার প্রসঙ্গে রবিবাব বলিলেন—“আমি প্রথমে কেবল কবিতাই লিখতুম, গল্পে-টলেপ বড়ো হাত দিই নাই। মাঝে একদিন বাবা ডেকে বললেন, তোমাকে জমিদারির বিষয়কম দেখতে হবে।’ আমি তো অবাক ; আমি কবি মানষে, পদ্য-টদ্য লিখি, আমি এ সবের কী বকি ? কিন্তু বাবা বললেন, তা হবে না ; তোমাকে এ কাজ করতে হবে। কী করি ? বাবার হকুম, কাজেই বেরতে হল। এই জমিদারি দেখা উপলক্ষে নানা রকমের লোকের সঙ্গে মেশার সযোগ হয় এবং এই থেকেই আমার গল্প লেখারও শরা হয়।” এই কথা প্রসঙ্গে রবিবাব তাঁহার দই-একটি গল্প-রচনার ক্ষুদ্র ইতিহাস দিলেন। কোনো-না-কোনো বাস্তব ঘটনা বা বাস্তব চিত্র হইতে তাঁহার অনেক গল্পেরই উৎপত্তি। [ ২ মে ১৯o৯ ] —জিতেন্দ্রলাল বন্দ্যোপাধ্যায়। শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথ। সপ্রভাত, ভাদ্র ১৩১৬ সাধনা পত্রিকায় অধিকাংশ লেখা আমাকে লিখিতে হইত। ... এই সময়েই বিষয়কমের ভার আমার প্রতি অপিত হওয়াতে সবাদাই আমাকে জলপথে ও পথলপথে পল্লীগ্রামে ভ্রমণ করিতে হইত— কতকটা সেই অভিজ্ঞতার উৎসাহে আমাকে ছোটোগল্প-রচনায় প্রবত্ত করিয়াছিল। সাধনা বাহির হইবার পবেই হিতবাদী কাগজের জন্ম হয়। ... সেই পত্রে প্রতি সপ্তাহেই আমি ছোটোগলপ সমালোচনা ও সাহিত্যপ্রবন্ধ লিখিতাম। আমার ছোটোগল্প লেখার সত্রপাত ঐখানেই। ছয় সপ্তাহকাল লিখিয়াছিলাম। সাধনা চারি বৎসর চলিয়াছিল। বন্ধ হওয়ার কিছুদিন পরে এক বৎসর ভারতীর সম্পাদক ছিলাম, এই উপলক্ষ্যেও গল্প ও অন্যান্য প্রবন্ধ কতকগুলি লিখিতে হয়। বোলপরে, ২৮ ভাদ্র ১৩১৭ \ —রবীন্দ্রনাথ, পন্মিনীমোহন নিয়োগীকে লিখিত পত্র। আত্মপরিচয় একটা কথা মনে রেখো, গল্প ফোটোগ্রাফ নয়। যা দেখেছি, যা জেনেছি, তা যতক্ষণ না মরে গিয়ে ভূত হয়, একটার সঙ্গে আর-একটা মিশে গিয়ে পাঁচটায় মিলে পণ্যত্ব পায়, ততক্ষণ গলেপ তাদের পথান হয় না। ৭ আশিবন ১৩৩৮ — রবীন্দ্রনাথ। চিঠিপত্র ১ বর্ষার সময় খালটা থাকত জলে পণ। শকিনোর দিনে লোক চলত তার উপর निम्न । uी नाहब्र झिल ७कल्ले शझे, नथाप्न बाध्य छनष्ठा। माछणान्न घब्र रथळक प्नाकाणरग्नब जौना नवउ छाप्ना नाशङ । नथाब्र जामाब्र जौबमवाया ख्णि जनछा BB BB Du uS BB DDS BBB BBD DDBB DD DD DDS