প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/২৫৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিচয় ১০৯ করে আমার গল্পের মুখে বােজনা করবেন। পরবর্তী অধ্যাপকগণ এইভাবে রুমে সংগতি রক্ষা করে গপের অবয়ব রচনা ও যােজনা করে তাদের পালা গত করলে, আমি শেষে গপের উপসংহার করৰ। কবির কথায় সকলে সাত নিলেন। গল্পও আর ও সমাপ্ত হল। কিন্তু এই গল্পটির একটুও মনে হয় না, সে অনেক দিন পরেই কথা। -হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়। কষির কথা | পাঁচ-ছয়জন মিলিয়া মুখে মুখে গল্প রচনা করার একটা খেলা তাহারা খেলিতেন, সে কাহিনীও শুনিলাম। দলের একজন গল্পকে নানা লােমহর্ষণ অবস্থায় ফেলিয়া হাল ছাড়িয়া দিতেন, উবারের ভার পড়িত রবীন্দ্রনাথের উপর। অনেক সময় গল্পের আদি ও অত দুয়েরই তাল সামলাইতে হইত তাঁহাকে। 'দুরাশা ‘গুপ্তধন’ প্রভৃতি অনেক গল্পই নাকি এইভাবে রচিত হইয়াছিল। -সীতা দেবী। তি ১২ বিপিনচন্দ্র পাল রচিত মশালের কথা', নারায়ণ, অগ্রহায়ণ ১৩২১। রবীন্দ্রনাথের স্বীয় পত্র লইয়া তৎকালে বাংলা সাহিত্যে বিশেষ আলােলন হয়। | ১৩ শ্ৰীহেমেন্দ্রকুমার রায় আরও লিখিয়াছেন—“নিজে বেশি উপন্যাস লেখেন নি, কিন্তু নতন উপন্যাসের পট ছিল যেন তার হাতখরা। বখবর চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় ঐভাবে রবীন্দ্রনাথের মুখে মুখে সস্ট কয়েকটি আখ্যান সব্যবহার করতে পেরেছিলেন। | চা বন্দ্যোপাধ্যায় তাহার শ্লোতের ফল’ ‘দই তার হেরফের’ ও ‘ধোকার টাটি উপন্যাসের কাঠামাে’ ‘আভাস’ বা মূল ধারা রবীন্দ্রনাথের নিকট হইতে পাইয়াছিলেন। প্রথম তিনখানি এনে সে কথা স্বীকৃত আছে; চতুখানির ক রবি-রমি’ পশ্চিম ভাগের পরিশিষ্টে উন্নত। | • শ্রীসুধীরচ কম, কবি-কথা, প ৪৪। সম্প্রতি (২৮.১২.১৯৬৩) বলাইচাঁদ মুখােপাধ্যায় মহাশয় আশুলিনবিহারী সেনকে জানাইয়াছেন : নির্মোক বইয়ের অমরনামক চরিত্রটি এই শটের সাহায্যে আমি একেছি। যে পত্রে রবীন্দ্রনাথ এই গল্পের লট লিখিয়া পাঠাইয়াছিলেন সেটি বলাইচাঁদ মুখখাপাধ্যায়ের রবীন্দ্রস্মৃতি’ (১৩৭৫) এশে প্রকাশিত হইয়াছে, তাহারই সৌজন্যে লখ নকল হইতে উহার প্রাসঙ্গিক অংশ নিয়ে সংকলিত হই । সময়টা সেকালের প্রান্ত-ঘেষ। মাঠাকরুন বড়ো ঘরের ঘরণী-স্বামী-সহকারে চলেছেন তীর্থপরিক্রমে। শেমিজ-তােয় লজ্জা, অবধানে সংকোচ, ল্যাবধি পাকিবাহিনী, আধুনিক পপ্রায় স্বামীর তত আপত্তি ছিল না, কিন্তু যে সনাতনী আচার বশরকুলের বংশানগত আভিজাত্য আকড়ে ছিল তার কোনাে ব্যত্যয় গৃহিণী সইতে পারতেন না, যদিও মানুষের অনাচারে ধৈর্য রক্ষা করতে অগত্যা অভ্যস্ত হয়েছিলেন। তার ছেলেটি আধুনিক লােরেটোতে শিক্ষিত মেয়েকে বাছাই করে বাপ-মায়ের অগােচরেই বিয়ে করেছিল, মেয়েটির বয়স গৌরীয় কাছাকাছি। যায় নি বলে দসহ ক্ষোভ পরিবারে একদা আলােড়িত হয়েছে। অপদিনে প্রমাণ