প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/৫২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ল্যাবরেটরি ba○ “স্বামী হবে এঞ্জিনিয়ার আর পল্লী হবে কোটনা-কুটনী, এটা মানবধর্মশালের নিষিদ্ধ। ঘরে ঘরে দেখতে পাই দুই আলাদা আলাদা জাতে গাঁটছড়াবাঁধা, আমি জাত মিলিয়ে নিচ্ছি। পতিৱতা সন্ত্রী চাও যদি, আগে ব্লতের মিল করাও।” दे নন্দকিশোর মারা গেলেন প্রৌঢ় বয়সে কোন-এক দুঃসাহসিক বৈজ্ঞানিক পরীক্ষার অপঘাতে । সোহিনী সমস্ত কারবার বন্ধ করে দিলে। বিধবা মেয়েদের ঠকিয়ে খাবার ব্যাবসাদার এসে পড়ল চার দিক থেকে। মামলার ফাঁদ ফাঁদলে আত্মীয়তার ছিটেফোঁটা আছে যাদের। সোহিনী স্বয়ং সমস্ত আইনের প্যাঁচ নিতে লাগল বঝে । তার উপরে নারীর মোহজাল বিস্তার করে দিলে পথান বুঝে উকিলপাড়ায়। সেটাতে তার অসংকোচ নৈপুণ্য ছিল, সংস্কার মানার কোনো বালাই ছিল না। মামলায় জিতে নিলে একে একে, দরে সপকের দেওর গেল জেলে দলিল জাল করার অপরাধে । ওদের একটি মেয়ে আছে, তার নামকরণ হয়েছিল নীলিমা। মেয়ে স্বয়ং সেটিকে বদল করে নিয়েছে—নীলা। কেউ না মনে করে, বাপ-মা মেয়ের কালো রঙ দেখে একটা মোলায়েম নামের তলায় সেই নিন্দেটি চাপা দিয়েছে। মেয়েটি একেবারে ফটফটে গৌরবণ। মা বলত, ওদের পাব পরষ কাশমীর থেকে এসেছিল— মেয়ের দেহে ফটেছে কাশমীরী শ্বেতপদ্মের আভা, চোখেতে নীলপমের আভাস, আর চুলে চমক দেয় যাকে বলে পিঙ্গলবণ । মেয়ের বিয়ের প্রসঙ্গে কুলশীল জাতগুটির কথা বিচার করবার রাস্তা ছিল না। একমাত্র ছিল মন ভোলাবার পথ, শাসকে ডিঙিয়ে গেল তার ভেলকি। অলপ বয়সের মাড়োয়ারি ছেলে, তার টাকা পৈতৃক, শিক্ষা এ কালের। অকস্মাৎ সে পড়ল এসে অনঙ্গের অলক্ষ্য ফাঁদে। নীলা একদিন গাড়ির অপেক্ষায় ইস্কুলের দরজার কাছে ছিল দাঁড়িয়ে। সেই সময় ছেলেটি দৈবাৎ তাকে দেখেছিল। তার পর থেকে আরও কিছুদিন ঐ রাস্তায় সে বায়সেবন করেছে। স্বাভাবিক সীবৃদ্ধির প্রেরণায় মেয়েটি গাড়ি আসবার বেশ কিছুক্ষণ পাবেই গেটের কাছে দাঁড়াত। কেবল সেই মাড়োয়ারি ছেলে নয়, আরও দাচার সম্প্রদায়ের যবেক ঐখানটায় অকারণ পদচারণার চর্চা করত। তার মধ্যে ঐ ছেলেটিই চোখ বাজে দিল ঝাঁপ ওর জালের মধ্যে। আর ফিরল না। সিভিল মতে বিয়ে করলে সমাজের ওপারে। বেশি দিনের মেয়াদে নয়। তার ভাগ্যে ' বধাটি এল প্রথমে, তার পরে দাপত্যের মাঝখানটাতে দাঁড়ি টানলে টাইফয়েড, তার পরে মন্তি। সটিতে অনাসটিতে মিশিয়ে উপদ্রব চলতে লাগল। মা দেখতে পায় তার মেয়ের ছটফটানি। মনে পড়ে নিজের প্রথম বয়সের জবালামুখীর অনিচাঞ্চল্য। মন উদবিগ্ন হয়। খাব নিবিড় করে পড়াশোনার বেড়া ফাঁদতে থাকে। পরব शिचकक ब्राथल ना ।। ४कछन विमदशौटक जात्रिादग्न मिळ Gग्न शिककडाग्न । नौलाख যৌবনের অাঁচ লাগত তারও মনে, তুলত তাকে তাতিয়ে অনিৰ্দেশ্য কামনার তপতবাপে। মাখের দল ভিড় করে আসতে লাগল এ দিকে, ও দিকে। কিন্তু দরওয়াজা