প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (তৃতীয় খণ্ড).djvu/১৩৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


হালদারগোষ্ঠী も8○ তাহার সম্পণে সমৰ্থন করে। তাহার নিশ্চয় বিশ্বাস, বনোয়ারির হাতে যদি বিষয় পড়িত তবে রাজ্যের যত ছোটোলোক, যত যদ মধ্য, যত কৈবত এবং আগারির দল তাহাকে ঠকাইয়া কিছ আর বাকি রাখিত না এবং হালদার-বংশের এই ভাবী আশা একদিন অকলে ভাসিত। বশরের কুলে বাতি জনালিবার দীপটি তো ঘরে আসিয়াছে, এখন তাহার তৈলসঞ্চয় যাহাতে নষ্ট না হয় নীলকণ্ঠই তো তাহার উপযুক্ত প্রহরী। বনোয়ারি দেখিল, নীলকণ্ঠ অতঃপরে আসিয়া ঘরে ঘরে সমস্ত জিনিসপত্রের লিস্ট করিতেছে এবং যেখানে যত সিন্দুক-বাক্স আছে তাহাতে তালাচাবি লাগাইতেছে। অবশেষে কিরণের শোবার ঘরে আসিয়া সে বনোয়ারির নিত্যব্যবহাষ সমস্ত দ্রব্য ফদৰ্ভুক্ত করিতে লাগিল। নীলকণ্ঠের অন্তঃপরে গতিবিধি আছে, সতরাং কিরণ তাহাকে লজা করে না। কিরণ খবশরের শোকে ক্ষণে ক্ষণে অশ্রী মছিবার অবকাশে বাপরাধকণ্ঠে বিশেষ করিয়া সমস্ত জিনিস বঝাইয়া দিতে লাগিল। বনোয়ারি সিংহগজনে গজিয়া উঠিয়া নীলকণ্ঠকে বলিল, “তুমি এখনি আমার ঘর হইতে বাহির হইয়া যাও।” নীলকন্ঠ নম্র হইয়া কহিল, “বড়োবাব, আমার তো কোনো দোষ নাই। কতার উইল-আনসারে আমাকে তো সমস্ত বুঝিয়া লইতে হইবে। আসবাবপত্র সমস্তই তো হরিদাসের।” কিরণ মনে মনে কহিল, দেখো একবার, ব্যাপারখানা দেখো ! হরিদাস কি আমাদের পর। নিজের ছেলের সামগ্রী ভোগ করিতে আবার লজা কিসের। আর, জিনিসপত্র মানুষের সঙ্গে যাইবে না কি। আজ না হয় কাল ছেলেপলেরাই তো ভোগ করিবে - এ বাড়ির মেঝে বনোয়ারির পায়ের তলায় কাঁটার মতো বিধিতে লাগিল, এ বাড়ির দেয়াল তাহার দুই চক্ষকে যেন দগধ করিল। তাহার বেদনা ষে কিসের তাহা বলিবার লোকও এই বহৎ পরিবারে কেহ নাই। এই মহেতেই বাড়িঘর সমস্ত ফেলিয়া বাহির হইয়া যাইবার জন্য বনোয়ারির মন ব্যাকুল হইয়া উঠিল। কিন্তু, তাহার রাগের জবালা যে থামিতে চায় না। সে চলিয়া যাইবে আর নীলকণ্ঠ আরামে একাধিপত্য করিবে, এ কাপনা সে সহ্য করিতে পারিল না। এখনি কোনো-একটি গম্ভীরতর অনিষ্ট করিতে না পারিলে তাহার মন শান্ত হইতে পারিতেছে না। সে বলিল, নীলকন্ঠ কেমন বিষয় রক্ষা করিতে পারে আমি তাহা দেখিব।” বাহিরে তাহার পিতার ঘরে গিয়া দেখিল, সে ঘরে কেহই নাই। সকলেই অন্তঃপরের তৈজসপত্র ও গহনা প্রভৃতির খবরদারি করিতে গিয়াছে। অত্যন্ত সাবধান লোকেরও সাবধানতায় ক্ৰটি থাকিয়া যায়। নীলকণ্ঠের হংশ ছিল না যে, কতার বাক্স খালিয়া উইল বাহির করিবার পরে বাক্সয় চাবি লাগানো হয় নাই। সেই বাক্সর তাড়াবাঁধা মাল্যবান সমস্ত দলিল ছিল। সেই দলিলগুলির উপরেই এই হালদারবংশের সম্পত্তির ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত। বনোয়ারি এই দলিলগুলির বিবরণ কিছুই জানে না, কিন্তু এগুলি যে অত্যন্ত কাজের এবং ইহাদের অভাবে মামলা-মকদ্দমায় পদে পদে ঠকিতে হইবে তাহা সে বোঝে। কাগজগুলি লইয়া সে নিজের একটা রমালে জঙ্কাইয়া তাহাদের বাহিরের বাগানে চাঁপাতলার বাঁধানো চাতালে বসিয়া অনেকক্ষণ ধরিয়া ভাবিতে লাগিল ।