প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (তৃতীয় খণ্ড).djvu/১৮৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভাইফোঁটা 沙>惨 একেবারেই ভাবিতে পারিল না। ধড়াসা করিয়া দরজাটা পড়িল, ঘরে কে প্রবেশ করিল। আমি আপাদমস্তক চমকিয়া উঠিলাম। দেখিলাম, তখনো রোঁদু আছে। ঘামাইয়া পড়িয়াছিলাম; সবোধ ঘরে ঢুকিতেই আমার ঘমে ভাঙিয়াছে। 2 সবোধ হাটখোলা বড়োবাজার বেলেঘাটা প্রভৃতি যেখানে যেখানে প্রসন্নর দেখা পাইবার সম্ভাবনা ছিল সমস্ত দিন ধরিয়া সব জায়গায় খুজিয়াছে। যে করিয়াই হউক তাহাকে যে আনিতে পারে নাই, এই অপরাধের ভয়ে তার মুখ লান হইয়া গিয়াছিল। এত দিন পরে দেখিলাম, কী সন্দের তার মুখখানি, কী কর্ণায় ভরা তার দুইটি চোখ । আমি বলিলাম, “আয় বাবা সবোধ, আর আমার কোলে আয়!” সে আমার কথা বঝিতেই পারিল না; ভাবিল, আমি বিদ্রপ করিতেছি। ফ্যালক্যাল করিয়া আমার মুখের দিকে তাকাইয়া রহিল এবং খানিক ক্ষণ দাঁড়াইয়া মছিক্তি হইয়া পড়িয়া গেল। মহাতে আমার বাতের পৎগতা কোথায় চলিয়া গেল। আমি ছটিয়া গিয়া কোলে করিয়া তাহাকে বিছানায় আনিয়া ফেলিলাম। কু’জায় জল ছিল, তার মুখে মাথায় ছিটা দিয়া কিছুতেই তার চৈতন্য হইল না। ডাক্তার ডাকিতে পাঠাইলাম । - ডাক্তার আসিয়া তার অবস্থা দেখিয়া বিস্মিত হইলেন । বলিলেন, “এ যে একেবারে ক্লান্তির চরম সীমায় আসিয়াছে। কী করিয়া এমন হওয়া সম্ভব হইল।” আমি বলিলাম, “আজ কোনো কারণে সমস্ত দিন উহাকে পরিশ্রম করিতে হইয়াছে।” তিনি বলিলেন, "এ তো এক দিনের কাজ নয়। বোধ হয় দীঘকাল ধরিয়া ইহার ক্ষয় চলিতেছিল, কেহ লক্ষ্য করে নাই।” উত্তেজক ঔষধ ও পথ্য দিয়া ডাক্তার তার চৈতন্যসাধন করিয়া চলিয়া গেলেন । বলিলেন, “বহা যত্নে যদি দৈবাৎ বাঁচিয়া যায় তো বাঁচবে, কিন্তু ইহার শরীরে প্রাণশক্তি নিঃশেষ হইয়া গেছে । বোধ করি শেষ-কয়েক দিন এ ছেলে কেবলমাত্র মনের জোরে চলাফেরা করিয়াছে।" আমি আমার রোগ ভুলিয়া গেলাম। সবোধকে আমার বিছানায় শোয়াইয়া দিনরাত তার সেবা করিতে লাগিলাম। ডাক্তারের যে ফি দিব এমন টাকা আমার ঘরে নাই। সীর গহনার বাক্স খলিলাম। সেই পান্নার কন্ঠীটি তুলিয়া লইয়া সন্ত্রীকে দিয়া বলিলাম, “এইটি তুমি রাখো।” বাকি সবগুলি লইয়া বন্ধক দিয়া টাকা লইয়া आमिळनाय । কিন্তু, টাকায় তো মানুষ বাঁচে না। উহার প্রাণ যে আমি এতদিন ধরিয়া দলিয়া নিঃশেষ করিয়া দিয়াছি। যে মেহের অন্ন হইতে উহাকে দিনের পর দিন বঞ্চিত করিয়া রাখিয়ছি আজ যখন তাহা হাদয় ভরিয়া তাহাকে আনিয়া দিলাম তখন সে আর তাহা গ্রহণ করিতে পারিল না। শান্য হাতে তার মার কাছে সে ফিরিয়া গেল । ভায় ১৩২১ 86.