প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (তৃতীয় খণ্ড).djvu/৫৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৫৬৭
মাস্টারমশায়


মা কহিলেন, “মাস্টারমশায় কী।”
 বেণু বলিতে পারিল না মাস্টারমশায় কী করিয়াছেন। কী যে অভিযােগ তাহা ভাষায় ব্যক্ত করা কঠিন।
 ননীবালা কহিলেন, “মাস্টারমশায় বুঝি তাের মার নামে তাের কাছে লাগাইয়াছেন!”
 সে কথার কোনাে অর্থ বুঝিতে না পারিয়া বেণু উত্তর না করিয়া চলিয়া গেল।


ইতিমধ্যে বাড়িতে অধরবাবুর কতকগুলাে কাপড়চোপড় চুরি হইয়া গেল। পুলিসকে খবর দেওয়া হইল। পুলিস খানাতল্লাসিতে হরলালেরও বাক্স সন্ধান করিতে ছাড়িল না। রতিকান্ত নিতান্তই নিরীহভাবে বলিল, “যে লােক লইয়াছে সে কি আর মাল বাক্সর মধ্যে রাখিয়াছে।”
 মালের কোনাে কিনারা হইল না। এরূপ লােকসান অধরলালের পক্ষে অসহ্য। তিনি পৃথিবীসুদ্ধ লােকের উপর চটিয়া উঠিলেন। রতিকান্ত কহিল, “বাড়িতে অনেক লােক রহিয়াছে, কাহাকেই বা দোষ দিবেন, কাহাকেই বা সন্দেহ করিবেন। যাহার যখন খুশি আসিতেছে যাইতেছে।”
 অধরলাল মাস্টারকে ডাকাইয়া বলিলেন, “দেখাে হরলাল, তােমাদের কাহাকেও বাড়িতে রাখা আমার পক্ষে সুবিধা হইবে না। এখন হইতে তুমি আলাদা বাসায় থাকিয়া বেণুকে ঠিক সময়মতাে পড়াইয়া যাইবে, এই হইলেই ভালাে হয়—নাহয় আমি তােমার দুই টাকা মাইনে বৃদ্ধি করিয়া দিতে রাজি আছি।”
 রতিকান্ত তামাক টানিতে টানিতে বলিল, “এ তাে অতি ভালাে কথা—উভয় পক্ষেই ভালাে।"
 হরলাল মুখ নিচু করিয়া শুনিল। তখন কিছু বলিতে পারিল না। ঘরে আসিয়া অধরবাবুকে চিঠি লিখিয়া পাঠাইল, নানা কারণে বেণুকে পড়ানাে তাহার পক্ষে সুবিধা হইবে না, অতএব আজই সে বিদায় গ্রহণ করিবার জন্য প্রস্তুত হইয়াছে।
 সেদিন বেণু ইস্কুল হইতে ফিরিয়া আসিয়া দেখিল, মাস্টারমশায়ের ঘর শূন্য। তাঁহার সেই ভগ্নপ্রায় টিনের পে'টরাটিও নাই। দড়ির উপর তাঁহার চাদর ও গামছা ঝুলিত, সে দড়িটা আছে কিন্তু চাদর ও গামছা নাই। টেবিলের উপর খাতাপত্র ও বই এলােমেলাে ছড়ানাে থাকিত, তাহার বদলে সেখানে একটা বড়াে বােতলের মধ্যে সােনালি মাছ ঝকঝক করিতে করিতে ওঠানামা করিতেছে। বােতলের গায়ের উপর মাস্টারমশায়ের হস্তাক্ষরে বেণুর নাম-লেখা একটা কাগজ অাঁটা। আর-একটি নূতন ভালাে বাঁধাই করা ইংরেজি ছবির বই, তাহার ভিতরকার পাতায় এক প্রান্তে বেণুর নাম ও তাহার নীচে আজকের তারিখ মাস ও সন দেওয়া আছে।
 বেণু ছুটিয়া তাহার বাপের কাছে গিয়া কহিল, “বাবা, মাস্টারমশায় কোথায় গেছেন?”
 বাপ তাহাকে কাছে টানিয়া লইয়া কহিলেন, “তিনি কাজ ছাড়িয়া দিয়া চলিয়া গেছেন।”
 বেণু বাপের হাত ছাড়াইয়া লইয়া পাশের ঘরে বিছানার উপরে উপুড় হইয়া