প্রধান মেনু খুলুন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
১৪৫
চাঁদের পাহাড়

 গুহার মধ্যে ঢুকে শঙ্কর টর্চ্চ জ্বেলে (নতুন ব্যাটারি তার কাছে ডজন দুই ছিল) দেখলে গুহাটা ছোট, মেজেটাতে ছোট ছোট পাথর ছড়ানো, বেশ একটা ছোটখাটো ঘরের মত । গুহার এক কোণে ওর চোখ পড়তেই অবাক হয়ে রইল । একটা ছোট্ট কাঠের পিপে ! এখানে কি করে এল কাঠের পিপে !

 এগিয়ে দুপা গিয়েই সে চমকে উঠল । গুহার দেওয়ালের ধার ঘেসে শায়িত অবস্থায় একটা সাদা নরকঙ্কাল, তার মুণ্ডটা দেওয়ালের দিকে ফেরানো । কঙ্কালের আশে পাশে কালো কালো থলে ছেড়ার মত জিনিষ, বোধ হয় সেগুলো পশমের কোটের অংশ । দুখানা বুট জুতো কঙ্কালের গায়ে এখনও লাগানো । একপেশে একটা মরচে-পড়া বন্দুক ।

 পিপেটার পাশে একটা ছিপি-আঁটা বোতল । বোতলের মধ্যে একখানা কাগজ । ছিপিটা খুলে কাগজখানা বার করে দেখলে, তাতে ইংরিজিতে কি লেখা আছে ।

 পিপেটাতে কি আছে দেখবার জন্যে যেমন সে সেটা নাড়াতে গিয়েচে, অমনি পিপের নীচে থেকে একটা ফোঁস ফোঁস শব্দ শুনে ওর শরীরের রক্ত ঠাণ্ডা হয়ে গেল । নিমেষের মধ্যে একটা প্রকাণ্ড সাপ মাটী থেকে হাত তিনেক উঁচু হয়ে