পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সোলাপুর, বিজাপুর প্রভৃতি অঞ্চল। দ্র: প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়, নব জ্ঞান-ভারতী, ভৌগোলিক, (১৯৫৭), ৫১৮ সাংলির রাণীর ভগিনী ও তার স্বামী ঐযুক্ত পটবর্ধন জাঙ্কস্বারিতে শাস্তিনিকেতনে এসেছিলেন কি না জানা যায় নি। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই বৎসর মার্চ মাসে সাংলির উইলিংডন কলেজের সংস্কৃতের অধ্যাপক শ্ৰীপরশুরাম লছমন বৈদ্য বিশ্বভারতীতে ‘অভিধৰ্ম্ম’ অধ্যয়নের জন্ত যোগদান করেন । *țT se i ‘riffatti fsafe”: (s) Light the signal. Father, (R) Yet I can never believe (9) If it is thy will—এইগুলি নৈবেদ্য কাব্যগ্রন্থের যথাক্রমে ৫৯ ( আমরা কোথায় অাছি ), ৬২ ( তব চরণের আশা ) এবং ৪৮ ( আঘাত সংঘাত মাঝে) সংখ্যক কবিতার ইংরেজি তৰ্জম, মডার্ণ রিভিয়ুতে, জানুয়ারি ১৯২০ সালে মুদ্রিত। কবিকৃত এই তৰ্জমাত্রর নিতান্তই আক্ষরিক অন্সবাদ ছিল না । প্রথম দুটি তজমা কৃষ্ণ কৃপালানি-সম্পাদিত “Poems— Rabindranath Tagore, (ss 8*) stru i:f: Krite পত্র ৬৬ ৷ উল্লিখিত এগুজের পত্রটি সম্ভবত পূর্ব আফ্রিকা থেকে ডিসেম্বর ১৯১৯ সালে রবীন্দ্রনাথকে লিখিত এগুজের পত্র। ফেব্রুয়ারি ১৯২৩ মাসের মডার্ণ রিভিযুর 'Notes' অংশে উদ্ধত এই দুটি চিঠির দ্বিতীয়টিই সম্ভবত এই পত্রের অভিপ্রেত। পত্র ৬৭, ৬৮ ৷ "মুলুর সম্বন্ধে একটা লেখা’— এটি ‘ছাত্র মুলু, স্মারক গ্রন্থ 'প্রসাদে' সংকলিত । ‘কালীমোহনের লেখাটি’— ‘মুক্তিদাপ্রসাদ', 'শাস্তিনিকেতন" 8ግ¢