পাতা:তীর্থরেণু.djvu/১১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
তীর্থরেণু
 

পরিধানে তার বিদেশীর বেশ, পরিচিত তার মুখ,
প্রেমের রূপের পূর্ণ সুষমা মন করে উৎসুক!
অনিমেষ চোখে পলক পড়িতে অমনি নিরুদ্দেশ!
দেবতার দূত ছলিয়া গেল রে মনে বুঝিলাম বেশ।

মিহির আর মরণ হ’ল না; নিশার তিমির চিরে
সিকন্দরের মত সে গিয়েছে অমৃত-কুপের তীরে।

মিহ্রি।


উড়ো পাখী

(মাত্রাবৃত্ত অমিত্রাক্ষর)

আপন দুখে আপনি আছি মরম ব্যথায় মর্ম্মে মরি’
কোন দেশের এক উড়োপাখী মন্‌টি নিয়ে গেছে সরি’!
মধুর, মধুর তার মাধুরি!
নিজের লোহে লাল হ’য়েছি নিজের সাথে যুদ্ধ করি,’
জীবন—সে হ’য়েছে ব্যাধি, চিকিৎসা কর সুন্দরী!
চতুর! কেন আর চাতুরী?
নাস্‌পাতি ঢেকেছ বুকে, রেখেছ মুখ মিঠায় ভরি’,
ব্যথা দিয়ে চলে গেছ ওই খেদে, হায়, কেঁদে মরি;
নিঠুর! দেখা দাও গো ফিরি’!
ওগো আমার সাধের স্বপন! চিরদিনের যাদুকরী!
ভিখারী দুয়ারে তোমার আছি দিবা বিভাবরী,
হাজির আছি শুন্‌তে হুকুম,—
মধুর! মধুর যার মাধুরী!

ডুম্‌ মীরণ।
৯৬