পাতা:তীর্থরেণু.djvu/১৮৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
তীর্থরেণু
 

অভিমান

ভাল হ'ত যদি প্রভু কিঙ্কর কিছু না হ'তাম আমি,
ভাল হ'ত যদি জগতের মাঝে জন্ম না হ'ত, স্বামী!
ধূলাই যখন হ’লাম হে প্রভু! না হ'য়ে রূপা কি সোনা,—
ভাল হত হ’লে মরুর বালুকা যেথা নাই আনাগোনা।
ফুটে উঠিলাম তবু ও যখন না হ’লাম শতদল,—
ভাল হ’ত হলে গিরি-শৈবাল অখ্যাত নিষ্ফল।
জীবের মধ্যে গণ্য হ’লাম,-না হ’লাম বুল্বু‌ল্‌!
ভাল হ'ত যদি জন্ম নিতাম যে দেশে ফোটেনা ফুল।
মানুষ হইয়া হ’ল না যখন মানুষের মত মন,
ভাল হ'ত যদি হ'য়ে জড়মতি রহিতাম আমরণ।
তা’ হ'লে যাতনা সহিতে হ'ত না কামনা দিত না ফাঁসী,
বড় ভাল হ'ত অজানা রহিত এই ভালবাসাবাসি।
মরণ এখন শরণ আমার, জীবনের পথে কাঁটা,
জাফর কহিছে, বড় ভাল হয়—হ'য়ে গেলে নাম-কাটা।

জাফরঃ।


চির বিচিত্র

জগতের এই নহবৎ-ঘরে বাদ্যকরের দলে,
জনম-নাকাড়া বাজাতে বারেক একে একে সবে চলে!
নিত্য প্রভাতে নুতন সত্য জেগে ওঠে অভিরাম,
গৌরব-ঘটা ঘিরি’ লয়ে চলে নূতন নূতন নাম!

১৬৮