পাতা:তীর্থরেণু.djvu/৬৪

এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
তীর্থরেণু
 

এমন সময় বলছে ডেকে প্রতিবেশী তার,
“গ্রহের ফেরে এবার আমি ডুবেছি নির্ঘাত,
বাপের হাঁপ আর সারবে কিসে মায়ের পায়ের বাত?
জ্বরের জ্বালায় ধুঁক্‌ছে থোকা, শান্তি নাইকো চিতে,
ভার্য্যা হ’ল বদমেজাজী গ্রহের কুদৃষ্টিতে!
হপ্তাখানেক বন্ধু ছিল মোদের দ্বন্দ্বরণ,
আবার বেধে যায়;—আকাশে দেখ্‌ছ অলক্ষণ?
লোকের মুখে, কানাঘুষায়, বুঝছি আমি বেশ,
উল্টাবে পৃথিবী এবার হবে কলির শেষ।”
অজ্ঞাচার্য্য বলেন “বন্ধু! তোমার কথাই ঠিক্,
গ্রহতারার গতিক দেখে ভুলেছি আহ্নিক!
চল দেখি ভিন্ন গাঁয়ে তল্পী আমার নিয়ে,
ও গ্রামটাতে গ্রহের দৃষ্টি কেমন? দেখি গিয়ে।”
সেথাও দেখে শুকতারা সে তেম্‌নি চেয়ে আছে,
তেম্‌নি লুটায় ধূম্র পুচ্ছ ধূমকেতুটার পাছে!
ফিরে তখন গেল দোঁহে আপন আপন ঘর,
ধৈর্য্য-ধনে ধনী তারা হল অতঃপর।

গেটে।


নব্য অলঙ্কার

ললিত শব্দের লীলা সকলের আগে কবিতায়;
পয়ার সে বর্জ্জনীয়, বরণীয় ছন্দে বিচিত্রতা;
নিশ্চয় নির্ণয় নাই, গ’লে যেন মিলিবে হাওয়ায়;
ভারে যাহা কাটে শুধু, রবে না এমন কোনো কথা।

৪৩