প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:নারীর মূল্য-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Svు নারীর মূল্য বিবাহের ছাদন-তলায় ঢুকিতে দেওয়া হয় না—পাছে দেবীর মুখ দেখিলেও আর কেহ দেবী হইয় পড়ে। মঙ্গল-উৎসবে দেবীর ডাক পড়ে না, দেবীর ডাক পড়ে শ্রাদ্ধের পিণ্ড রাধিতে। তার মা তাহাকে দেখিয়া হয়ত বা সহ্য করিতে পারিলেন না, অমুখে পড়িয়া মারা গেলেন। বাপ পঞ্চাশ বৎসর বয়সে ‘দায়ে পড়িয়া নিতান্ত অনিচ্ছায় লোকের অনুরোধ এড়াইতে না পারিয়া’ তার চেয়ে ছোট একটি মেয়েকে বিবাহ করিয়া ঘরে আনিলেন । ঘরের বিধবা মেয়ের উপর হুকুম হইয়া গেল, একটু সকাল সকাল, অর্থাৎ বেলা দশটার মধ্যে রাধিয়া বাড়িয়া তাহার বোমাকে যেন খাওয়াইয়া দেওয়া হয়। না হইলে, ছোট মেয়ে হয়ত পিত্ত পড়িবে। এ-বাড়ীতে বিধবা-মেয়ে ও নববধূর মূল্য যে এক বাটখারায় ধার্য হইতে পারে না, সে কথা বোধ করি আর বুঝাইয়া বলিতে হইবে না। বাপ ত বিবাহ করিয়া আনিলেন—ইনি প্রাচীন, সন্ত্রান্ত, টােলের অধ্যাপক, শাস্ত্রজ্ঞানেরও নাকি সীমা নাই ; বিধবা-বিবাহের বিরুদ্ধে একখানা বইও লিখিয়াছেন,–কিন্তু সে যাহাই হোক, য়ে লোক এক বাটার মধ্যে বাস করিয়া ও তাহার নিজের মেয়ের চেয়ে ছোট একটি মেয়েকে পত্নীভাবে গ্রহণ করিতে পারে, সে যে কেমন করিয়া মুখে আনে, ঘরের কোণে নারীজাতিকে পুজ করি, এ আমার বুদ্ধির অগোচর।. অথচ যে পুরুষ এ-রকমটি করে নাই, সে তৎক্ষণাৎ বলিয়া উঠিবে, যে করে সে করে, আমরা ত পারি না। অর্থাৎ, সে ভাবিতে চায় না, এ অবস্থায় সে নিজে কি করিবে। অবশু, ও দুর্ঘটনা ঘটিবার পূর্বে কাহাকেও স্বীকার করিতে বাধ্য করা যায় না ; কিন্তু শতকরা নিরানব্বই জন পুরুষ যে ঠিক এমনটিই করে, তাহ নিঃসন্দেহ । এক স্ত্রী জীবিত থাকিতেও পুরুষ ঘরের মধ্যে আরও এক শত স্ত্রী আনিয়া উপস্থিত করিতে পারে, কিন্তু দ্বাদশ-বর্ষীয়া বালিকা বিধবা হইলেও তাহাকে দেবী হইতেই হইবে, এই ব্যবস্থা এ-দেশের সমস্ত নারী-জাতিকে যে কত হীন, কত