প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:পণ্ডিতমশাই-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৫০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


§ - & 9 পণ্ডিতমশাই কুহুম সয়েছে হাখিা তাহাকে কোলের কাছে টানিয়ু বলি, ছি, বাব, বলতে নেই! মামিমাকে দেখতে গিয়েছিলুম বলতে হয়। কুঞ্জর শাশুড়ী বললেন, বেদ বোমের ছেলে বুঝি? এক ফোটা ছোড়ার কথা দেখ ! - - দারুণ বিস্ময়ে কুম্বমের হাসি মুখ এক মুহূৰ্ত্তে কালি হইয়া গেল। সে একবার দাদার মুখের প্রতি চাহিল, একবার এই নিরতিশয় অশিক্ষিত৷ অপ্রিয়বাদিনীর মুখের প্রতি চাহিল, তার পর, বড় তুলিয়া লইয়া ছেলের হাত ধরিয়া রান্নাঘরে চলিয়া গেল । অকস্মাৎ একি ব্যাপার হইয়া গেল ! কুঞ্জ নিৰ্ব্বোধ হইলেও শাশুড়ীর এত বড় রুক্ষ কথাটা তাহার কানে বাজিল, বিশেষ ভগিনীকে ভাল রিয়াই চিনিত, তাহার মুখ দেখিয়া মনের কথা স্পষ্ট অনুমান করিয়া সে অন্তরে উদ্বিগ্ন হষ্ট্রয় উঠিল। সে বুঝিয়ছিল, কুসুম ইহাকে আর কিছুতেই দেখিতে পরিবে না। তাহার শাশুড়ীও মনে মনে লজ্জা পাইলাছিল । ঠিক এইরূপ বলা তাহারও অভিপ্রায় ছিল না। শুধু শিক্ষা ও অভ্যাসের দোষেই মুখ দিয়া বাহির হইয়া গিয়াছিল। রান্নাঘত্ব হইতে কুসুম গোকুলের বিধবার দিকে ভাল করিয়া চাহিয়৷ টেলি বয়স, চল্লিশ পূর্ণ হয় নাই। পরণে থান কাপড়, কিন্তু গলায় সানার হার, কানে মাকড়ি, বাহুতে তাগ এবং বাজু—নিজের শাশুড়ীর সহিত তুলনা করিয়া তাহার ঘৃণা বোধ হইল। দাদার সহিত তাহার কথাবাৰ্ত্ত গুইতেছিল, কি থা তাহা শুনিতে না পাইলেও, ইছা যে তাঙ্গল্পই সম্বন্ধে হইতো তাঙ্গ বেশ বুঝিতে পারিল। তিনি পান এবং দোক্তাটা কিছু বেশি খান। সকাল হইতে স্বরু করিয়া যারাদিনটাই সেটা ঘন ঘন চলিতে লাগিল। স্নানান্তে তিলক- ,