পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ꮌ Ꮏ- 8 পাল ও বর্জিনিয়া । কর । উত্তম ও অধম ভেদে সাহস দুই প্রকার হয, যাহাদ্বারা ধৈর্য্য ও সহিষ্ণুতার রক্ষা হয় তাহাই উত্তম, ও যাহাদ্বারা ক্লেশের সময়ে মরণে উদ্যম করায় তাহাকে অধম বলা যায় ” । পাল আমার এই সকল কথা শুনিয়া কহিল তবেত আমি কোনমতেই সহিষ্ণু হইতে পারি না । বঞ্জিনিয়ার বিরহে প্রত্যেক বস্তুই আমার ক্ষোভ ও মনস্তাপ জন্মাইতেছে ” এই বলিয়া অতিশয় রোদন করিতে লাগিল । ইহাতে আমি তাহাকে প্রবোধ দিবার জন্য কহিতে লাগিলাম “বৎস! এবড় বিচিত্ৰ কথা নহে । অতিশয় ধাৰ্ম্মিকেরাও সতত ধৰ্ম্মে রত ও ধৈর্য্যশালী থাকিতে সমর্থ হন না । সময়বিশেষে ভঁাহারাও কখন ২ কাম ক্রোধ লোভাদি রিপুদ্ধার বিকার প্রাপ্ত হইয়া থাকেন । পরস্তু এমন বিকৃত ভাবেও শাস্ত্রজ্ঞানরূপ উপায়দ্বারা আমরা অনায়াসেই পরমানন্দ সম্ভোগ করিতে সমর্থ ङ्हें । পাল শুনিয়। অগুরুগুণ-নয়নে কহিতে লাগিল “হ। কপাল! বর্জিনিয়া এখানে থাকিলে আর আমার শাস্ত্ৰজ্ঞানের কথায় কোন প্রয়োজন থাকিত না । আমাহইতে বৰ্জ্জিনয়ার বিদ্য কোন অংশেই অধিক ছিল না। বিশেষতঃ যখন সে অামার পানে চাহিয়া আমাকে প্রিয়সম্বোধন করিয়া ডাকিত, তখন আমিীর অমুখের বিষয় কিছুমাত্র থাকিত না । এই সকল কথা শুনিয়া আমি বললাম “ই, একথা বেখাৰ্থ বটে। যদি মনের মত প্রণয়িনী মিলে, তাই इ३८त्र नङ्गे ब्रम बङ्क श्हेग्न उप्झै । श्रृंडद्वा९ डोदो’