পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৪৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । ৩৭ সকল কথা শুনিয় তাহার হাতে সেই পত্ৰখানি দিয়! কেবল দুই চারি কথায় সজেক্ষপে এই উত্তর করিলেন “ ভাল, দেখা যাইবেক ; এ বিষয়ে বিবেচনা করিব । বিশেষ কারণ না দেখিতে পাইলে, আমি আপাততঃ কিছু উপায় করিতে পারি না । তুমি যেমন, এমন আরো শত সহস্র ব্যক্তি দুঃখী আছে । কেবল দুঃখের কথা শুনিয়াই যদি তোমার উপকার করিতে হয়, তবে আর২ সকলে কি অপরাধ করিলেক ? তুমি সদ্বংশে জন্মিয় তাহ যে প্রকার কলঙ্কিত করিয়া আসিয়াছ ত{হাতে তোমার বিলক্ষণ অভদ্রতা প্রকাশ পাইয়াছে। ফলে তুমি বড়ই কুকৰ্ম্ম করিয়াছ” । এইরূপ ককশ উত্তর পাইয়া বিবি দিলাতুর এককালে একান্তহতাশ ও ভগ্ন মনোরথ হইয় পড়িলেন। কি করিবেন ভাৰিয়া চিন্তিয়া স্থির করিতে না পারিয়া তথা হইতে গৃহে ফিরিয়া আইলেন এবং পরিবারের কাহারে সহিত কোন কথা না কহিয়া পত্ৰখানি একস্থানে ফেলিয়া অতি বিমর্ষ ভাবে একধারে বসিয়া রহিলেন । ক্ষীণককাল বিলম্বে মার গ্রেটকে নিকটে ডাকিয় কহিলেন “ সখি ! এত কালপর্য্যন্ত যে পিসীর মুখ চাহিয়া ছিলাম, আজি তাহার সমুচিত ফল পাওয়া গিয়াছে। ঐ দেখ ভঁাহার পত্র পড়িয়া রহিয়াছে’ মার গ্রেটু এই কথা শুনিৰামাত্র অমনি কই কই বলিয়৷ সত্ত্বরে সেই পত্ৰখানি তুলিয়া লইলেন । তুলিয়া লইলেন বটে, কিন্তু আপনি তাহা পড়িতে পারিলেন না। সেই দুই গৃহস্থের মধ্যে কেবল বিৰি দিলাতুবই লিখিতে পড়িতে জানিতেন এই মাত্র । সুতরাং 轻