পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৬২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । G S ভৎকালে ওখ ন হইতে অার এক পা অগ্রসর হওয়! তাহাদের বিবেচনায় সহজ বোধ হইল না । এই যে মরীচি উপদ্বীপ দেখিতেচ, ইহার অধিকাংশ এবং অত্রতা অনেক২ নদ নদী পৰ্ব্বতাদি বস্তু সকলের নাম অদ্যাপিও কাহারে বিদিত নহে। বিশেষতঃ তৎকালে এ সমুদায় জানিবার সম্ভাবনাই ছিল ন। এদিকে পাল ও বর্জিনিয়া সেই নদীর কূলে দণ্ডায়মান হইয়া দেখিল, যে নদীটি সেই পৰ্ব্বতের এক উচ্চ শুঙ্গ হইতে বিস্তারিত শিলারাশির উপরি পতিত হইয়া সাভিশয় ফেনিল হইতেছে । সাহসিক পাল সেই স্থান দিয়া পদব্রজে পার হইবার উপক্রম করিল। বজিনিয়া সেই নিবfর পাতের শব্দ শুনিয়া ও সাতিশয় দ্রুতবেগে জলপ্রবাহকে প্রবাহিত দেখিয়া ভয়ে তাহী পার হইতে চাহিল না । ইহাতে পাল তাহাকে সাহস প্রদানপুৰ্ব্বক আপনার পৃষ্ঠদেশে আরোহণ করাইয়া সেই স্রোতোজলে নামিল, এবং তাদৃশ ভয়ঙ্কর ধ্বনিতেও শঙ্কিত না হইয় “বজিনিয়ে ! কিছু ভয় নাই, কিছুষ্ট ভয় নাই, এখনই ইহ। পার হইব, আমি তোমার ভরে ক্লান্ত ও শ্রান্ত হই নাই’ । এই কথা বারংবার বলিতে ২ বর্জিনিয়াকে লইয়া সেই দুর্গম স্থান উত্তীর্ণ হইল । অনস্তুর পাল বজিনিয়াকে কহিতে লাগিল “ আজি যদি সেই ক্লষক তোমার অনুরোধে সেই কাফি, দাসীর অপরাধ মগজনা না করিত, তাহা হইলে আমি তাহার সঙ্গে একটা, ঘোর বিবাদ না করিয়া আসিতাম না ’ । এই কথা শুনিয়া বর্জিনিয়া কহিয়া উঠিল “ কি বলিলে দাদা ! যদি আমি আগে