পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/৮৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* や পাল ও বর্জিনিয়া । পরে যে যে ঘটনা হইয়াছিল তাহার বিবরণ করিতেছি মনোযোগ পুৰ্ব্বক শ্রবণ কর । তাহারা প্রতিদিন কি প্রকার পরিশ্রম করিতে হইবেক সতত তদ্বিষয়েই কথা বাৰ্ত্তা করিত। পর দিবস যে বিষয়ে যত পরিমাণে পরিশ্রম করিতে হইবেক, পাল তাহার প্রথা স্থির করিতে বিলম্ব করিত না । অপর, পরিবারগণের কিসে মুখ ও সচ্ছন্দ জন্মিতে পারে তদ্বিষয় চিন্তা করাও পালের ভার ছিল । সে কখন কোন স্থানে যাতায়াভের পথ পরিস্কার বা সংস্কার করিত। কখন পরিবারদিগের উপবেশনের জন্য কোথাও বেদির মত মঞ্চ প্রস্তুত করিত । কোন কোন সময়ে সে অন্যমনস্কের মত এক নির্জন স্থানে বসিয়া, দিনের বেলায় কখন কোন স্থানে গাছের ছায় পড়িলে তথায় বজিনিয়া পরমসুখে উপবেশন করিতে পারে তদ্বিষয়েই চিন্তা করিত । রাত্রিকালে দুই পরিবারে এক গৃহে আহার করিতে বসিতেন । শয়নুের পূৰ্ব্বে খানিক ক্ষণ বিৰি দিলাতুর কিম্ব মার গ্রেট, পুৰ্ব্বকালে যে সকল পর্য্যটকের রাত্রিযোগে পথ হারাইয়া গহন বনে দমু্যকর্তৃক আক্রান্ত হইয়া ঘোর ৰিপদসাগরে নিমগ্ন হইয়াছিল, এবং ষে সকল পোতবণিকের প্রবল ঝড়ের বেগে ভগ্ননিমগ্নপোত হইয়া অতি কষ্টে কোন মরুদ্বীপে উত্তীর্ণ হইয়া মহাক্লেশ সহ করিয়াছিল, তাহঁাদের দুঃখজনক উপখ্যান কহিতে আরম্ভ করিতেন। এইরূপে জননীদিগের মুখে সেই সকল ইতিহাস শ্রবণ করিতেই সেই শিশুদের কোমল চিত্ত এককালে কারুণ্যরসে অাদ্র হইয়।